কিশোরীকে যৌন নিপীড়ন: অভিযুক্ত রিপাবলিকান নেতার আত্মহত্যা

ডেস্ক রিপোর্ট :  ১৭ বছর বয়সী এক কিশোরীকে যৌন নিপীড়নের দায়ে অভিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের কেন্টাকি অঙ্গরাজ্যের আইনপ্রণেতা এবং রিপাবলিকান দলের নেতা ড্যান জনসন আত্মহত্যা করেছেন।

কেন্টাকির বুলিট কাউন্টির ময়নাতদন্তকারী কর্মকর্তা ডেভ বিলিংস জানান, রিপাবলিকান প্রতিনিধি ও লুইসভিলে চার্চের স্বঘোষিত পোপ ড্যান জনসন সম্ভবত আত্মহত্যা করেছেন।

বুধবার সন্ধ্যায় মাউন্ট ওয়াশিংটনের গ্রিনওয়েল ফোর্ড সড়কের একটি সেতুর কাছে নিজের গাড়িতে মাথায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তার মৃতদেহ পাওয়া যায়।

৫৭ বছর বয়সী জনসনের বিরুদ্ধে তার মেয়ের এক কিশোরী বান্ধবীকে যৌন নিগ্রহের অভিযোগ উঠেছিল। অভিযোগের পর কেন্টাকির রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট পার্টির নেতারা জনসনকে প্রতিনিধি পরিষদ থেকে পদত্যাগের আহ্বান জানান।

সোমবার কেন্টাকি সেন্টার ফর ইনভেস্টিগেটিভ রিপোর্টিং এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, আইনপ্রণেতা জনসনের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ করেছিলেন স্থানীয় চার্চের এক কিশোরী।

ওই কিশোরীর দাবি, ২০১৩ সালে নিজের বাড়ির বেসমেন্টে জনসন তার শরীর স্পর্শকাতর অংশে হাত দেন। পর দিন মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে ওই অভিযোগ অস্বীকার করেন জনসন।

এর পর বুধবার স্থানীয় সময় ৫টার কিছুক্ষণ আগে ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ অস্বীকার করেন জনসন।

ফেসবুক পোস্টে তিনি বলেন, যৌন নিপীড়নের অভিযোগ মিথ্যা। এ বিষয়ে একমাত্র ঈশ্বরই প্রকৃত সত্য জানেন।

গত ১৬ বছর ধরে পোস্ট-ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডারে ভুগছেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি। কিন্তু বুধবার সন্ধ্যায় নিজ গাড়িতেই জনসনের গুলিবিদ্ধ মৃতদেহ পাওয়া যায়।

উল্লেখ্য, এক ফেসবুক পোস্টে বারাক ও মিশেল ওবামাকে বানরের সঙ্গে তুলনা করে তুমুল বিতর্কের জন্ম দিয়েছিলেন ড্যান জনসন।

২০১৬ সালে তিনি কেন্টাকির প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। সূত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন