ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের পর জেরুজালেমে যে সাতটি ভয়ংকর পরিবর্তন আসবে

সাইদুর রহমান : জেরুজালেমে ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত যদি বাস্তবায়ন হয় তাহলে জেরুজালের পুরো চিত্র ও ইতিহাসই পাল্টে যাবে। ঐতিহ্যবাহী এই শহরের প্রতিটি নিদর্শনই কট্টরপন্থি ইহুদিদের দ্বারা কলুষিত হবে। মুছে যাবে শত বছরের নাম-নিশানা।

জেরুজালেমের এই ভয়ংকর পরিবর্তনগুলো নিয়ে কথা বলেছেন পবিত্র জেরুজালেম মসজিদের খতিব ও ইমাম শেখ ইকরামা সাবেরি।

শেখ সাবেরি বলেন, প্রথম যে ভয়ানক পরিবর্তন হবে তা হলো, জেরুজালেম শহরের অভ্যন্তরে ইসরায়েলের দখলদার সেনাবাহিনী সামরিক ঘাঁটি স্থাপন করবে। ফলে দখলদার বাহিনী প্রকাশ্যভাবে শহরের যে কোনো স্থানে প্রবেশ করবে।

দ্বিতীয় যে পরিবর্তনটি হবে তা হলো, অল্প কয়েক দিনের মধ্যেই দখলদার বাহিনী প্রকৃত আল-আকসা মসজিদ ভেঙ্গে দিবে এবং তদস্থলে তথাকথিত প্রতিকৃতি স্থাপন করা হবে প্রকাশ্যে এবং আনুষ্ঠানিকভাবেই।

তৃতীয় যে পরিবর্তনটি হবে তা হলো, জেরুজালেমের অধিবাসীদের গণহারে দেশ থেকে তাড়িয়ে দেয়া হবে। যাদের ইসরায়েলী নাগরিকত্ব থাকবে না তাদের বের করে দিবে এবং ভূমির আসল মালিকদের থেকে বহিস্কার করবে। ফলে ফিলিস্তিনিরা বাস্তুহারা ও ভিটেমাটি হারা হয়ে যাবে।

চতুর্থ যে ভয়ানক পরিবর্তনটি করবে তাহলো, প্রথমেই এ আইন ঘোষণা করবে যে, জেরুজালেমের অধিবাসীদের মালিকানার যাবতীয় দলিল-ডকুমেন্ট বাতিল এবং দখলদার ইসরায়েলের তথাকথিত রাজধানী হওয়ায় সবই তথাকথিক রাষ্ট্রের মালিকানাধীন হবে।

পঞ্চম পরিবর্তনটি হলো, জেরুজালেম শহর ও অধিবাসীদের ঐতিহ্যগত ইসলামী ও খ্রিষ্টিয় উত্তরাধিকার সংরক্ষণ বিষয়ক আন্তর্জাতিক আইন বাতিল হয়ে যাবে।

ষষ্ঠ পরিবর্তনটি হলো, জেরুজালেম সংক্রান্ত সকল আন্তর্জাতিক এবং আরব ইসলামিক আইনগুলো পর্যবসিত হবে। জেরুজালেম রাজধানী হলে তখন আর অন্য কোনো আইন ইসরায়েল মানবে না বরং নিজেদের মত করেই করবে।
সপ্তম পরিবর্তনটি হলো, রাজধানীর নিরাপত্তার রক্ষার অযুহাতে ফিলিস্তিনিরা এবং আরবরা জেরুজালেমের পবিত্র স্থানগুলো পরিদর্শন করতে আর পারবে না। সূত্র : খালিজ অনলাইন