আকাশপথের নিরাপত্তায় নজরদারিতে সব পাইলট

//তালিকায় আছেন ফার্স্ট অফিসার কেবিন ক্রু এবং প্রকৌশলীরাও//

ডেস্ক রিপোর্ট : আকাশপথে যাত্রীদের সার্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে বাংলাদেশ বিমানসহ দেশীয় সব এয়ারলাইন্সের পাইলটদের (বৈমানিক) ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও রাজনৈতিক মতাদর্শের বিষয়ে অনুসন্ধান করছে সরকার। এ ব্যাপারে হালনাগাদ তথ্য সংগ্রহে নেমেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এবং বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। সম্প্রতি পাইলট, ফার্স্ট অফিসার, কেবিন ক্রু ও প্রকৌশলীদের নিজস্ব ই-মেইলে তাদের ব্যক্তিগত তথ্য চাওয়া হয়েছে বাংলাদেশ বিমানের পক্ষ থেকে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজন পাইলট সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে তাদের তথ্য পেশও করেছেন।

বিমানবন্দরে কর্মরত সরকারি-বেসরকারি এয়ারলাইন্সের পাইলটদের পাশাপাশি হেলিকপ্টার সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর পাইলটদের তথ্যও সংগ্রহ করছে সিভিল অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া কো-পাইলট, কেবিন ক্রু, প্রকৌশলী, বিমানবন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং বন্দরে প্রবেশের ক্ষেত্রে যাদের সিভিল অ্যাভিয়েশনের পাস আছে, তাদের তথ্যও সংগ্রহ করা হচ্ছে। এসব তথ্য নিয়ে তৈরি করা হবে নতুন ডেটাবেজ। প্রয়োজনে এসব তথ্য পাবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বা সংস্থাগুলোও।

জানা গেছে, গত ৪ সেপ্টেম্বর মিরপুর দারুসসালামের বর্ধনবাড়ী এলাকায় বিমানের বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজের ফার্স্ট অফিসার (কো-পাইলট) সাব্বির এনামের বাড়িতে একাধিক জঙ্গির বসবাস এবং খোদ তারও জঙ্গিবাদে জড়িত থাকার সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়ার পর টনক নড়ে বিমান কর্তৃপক্ষের। এর পরই সরকারি-বেসকারি সব পাইলটের ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহে নামে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে ৮৩ জন পাইলট ও ৫৬ জন ফার্স্ট অফিসার কর্মরত আছেন। আর বেসরকারি এয়ারলাইন্সে দেশি-বিদেশি মিলিয়ে শতাধিক পাইলট রয়েছেন। এসব বৈমানিকের অন্যান্য সাধারণ তথ্যের পাশাপাশি তাদের স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানা, সব মোবাইলের নম্বর, অতীত ও বর্তমানের রাজনৈতিক মতাদর্শ ও সংশ্লিষ্টতার তথ্য, রাজনীতির সঙ্গে জড়িত আত্মীয়স্বজনের বিবরণ, বন্ধুবান্ধব, সশস্ত্র বাহিনীর সঙ্গে জড়িত আত্মীয়স্বজনের বিবরণ, অন্যান্য সংস্থার কোনো ব্যক্তির সঙ্গে আত্মীয়তা বা সম্পর্কের তথ্য, পারিবারিক তথ্যের বিস্তারিত বিবরণ, ব্যাংক হিসাব নম্বর, দুর্নীতির অভিযোগসহ কর্মক্ষেত্রে বঞ্চনার তথ্যও চাওয়া হয়েছে ই-মেইলের মাধ্যমে। আর বেসরকারি এয়ারলাইন্সগুলোর সব বৈমানিককে নির্ধারিত ফরমে ব্যক্তিগত তথ্য সরবরাহ করার নির্দেশনা দিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ম্যানেজার (জনসংযোগ) তাসমিন আক্তার বলেন, বিমানে কর্মরত সব বৈমানিকের ব্যক্তিগত আপডেট তথ্য চেয়ে সম্প্রতি তাদের ই-মেইল করা হয়েছে বিমানের পারসোনাল শাখা থেকে। কেউ কেউ ইতোমধ্যে তাদের ব্যক্তিগত তথ্য ফিরতি মেইলে সরবরাহ করেছেন।

সিভিল অ্যাভিয়েশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা রেজাউল করিম বলেন, রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তার স্বার্থে এবং বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সব এয়ারলাইন্সে কর্মরত বৈমানিকদের আপডেট তথ্য চাওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৪ সেপ্টেম্বর মিরপুর দারুসসালামের বর্ধনবাড়ী এলাকার একটি বাড়িতে জঙ্গিবিরোধী অভিযানের পর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা জানতে পারেন, ওই বাড়িতে ছিল জঙ্গি আব্দুল্লাহ, তার দুই স্ত্রী, দুই সন্তান ও দুই সহযোগী। ভবনটির মালিক বিমানের ফার্স্ট অফিসার সাব্বির এনামের বাবা হাবিবুল্লাহ বাহার আজাদ। জঙ্গিদের সঙ্গে সরাসরি জড়িত থাকার অভিযোগে সাব্বিরের বাবা ও নৈশপ্রহরী সিরাজুল ইসলাম আটক হন। এর পর বিমান নিয়ে নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগে বিমানের বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজের ফার্স্ট অফিসার সাব্বিরকে ৩০ অক্টোবর গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। একই সঙ্গে সাব্বিরের মা সুলতানা পারভীন, মামাতো ভাই আসিফুর রহমান আসিফ ও চায়ের দোকানদার আলমকেও গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনার পর নড়েচড়ে বসে বিমান কর্তৃপক্ষ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

সূত্র : আমাদের সময়