টেকনাফে ফিরেছেন সেন্টমার্টিনে আটকে পড়া সাড়ে ৪শ পর্যটক

ডেস্ক রিপোর্ট : নিম্নচাপের প্রভাবে সৃষ্ট বৈরী আবহাওয়ার কারণে সেন্টমার্টিনে আটকে পড়া পর্যটকরা চারদিন পর টেকনাফে ফিরে এসেছেন। নিম্নচাপের কারণে ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত জারির পর জাহাজ চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা শুক্রবার দ্বীপে আটকা পড়েন।

নিম্নচাপ কেটে যাওয়ায় সোমবার দুপুরে দ্বীপের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া পর্যটকবাহী জাহাজগুলো আটকে পড়া সাড়ে ৪শসহ নতুন সহিস্রাধিক পর্যটক নিয়ে সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে দমদমিয়া ঘাটে পৌঁছে। ফলে চারদিন উৎকন্ঠায় আটকে থাকা পর্যটকদের মাঝে উৎফুল্লতা দেখা দিয়েছে।

পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারি সিন্দাবাদ ও কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডায়ান’র টেকনাফস্থ ব্যবস্থাপক মো. শাহ আলম জানিয়েছেন, নিম্নচাপের প্রভাবে সতর্কতা সংকেত চলমান থাকায় গত শুক্রবার থেকে রোববার পর্যন্ত সেন্টমার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ ছিল। ফলে এর আগের দিন সেন্টমার্টিন গিয়ে প্রায় ৭০০ পর্যটক সেখানে আটকা পড়েন। নিম্নচাপ কেটে যাওয়ায় সোমবার সকাল ১০টার দিকে সকর্ততা সংকেত তুলে নেয়ায় দুপুরে পর্যটকবাহী জাহাজগুলো সেন্টমার্টিন পাঠানো হয়। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ফিরতি পর্যটক নিয়ে জাহাজগুলো টেকনাফের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে পর্যটকবাহী জাহাজগুলো টেকনাফ দমদমিয়া জাহাজ ঘাটে পৌঁছে।

এদিকে বৈরী আবহাওয়ায় জাহাজ বন্ধ থাকায় আটকে পড়া প্রায় ৭০০ পর্যটকের মধ্যে ২০০ জন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাঠের ট্রলারে রোববার টেকনাফে ফিরে আসেন। ওইদিন দুপুর ১টার দিকে তারা পাঁচটি ট্রলারে টেকনাফের ঘাটে পৌঁছান। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে শুক্রবার দুপুর থেকে থেমে থেমে বৃষ্টি হয়। কক্সবাজারে ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত জারি থাকায় সাগর ছিল উত্তাল। ফলে সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ। এতে সেন্টমার্টিন দ্বীপে রাত্রি যাপনে থেকে যাওয়া প্রায় ৭০০ পর্যটক আটকা পড়েন।

কক্সবাজার আবহাওয়া অধিদফতরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও সহকারী আবহাওয়াবিদ উজ্জ্বল কান্তি পাল বলেন, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি দুর্বল হয়ে সোমবার ভোর নাগাদ সুস্পষ্ট লঘুচাপ হিসেবে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তরপূর্ব বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আরও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে দুর্বল হয়ে যেতে পারে।

তিনি আরও জানান, সোমবার সকাল ১০টা থেকে পূর্বের দেয়া সতর্কতা সংকেত নামিয়ে ফেলা হয়েছে। লঘুচাপের প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগরে গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালার সৃষ্টি অব্যাহত থাকায় কোথাও কোথাও হালকা বৃষ্টিপাত হচ্ছে। সোমবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত কক্সবাজারে ১৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

আবহাওয়া অফিসের তথ্য মতে, কয়েকদিন পর থেকে রাতে শীতের তীব্রতা বাড়বে। চলতি ডিসেম্বর মাসের শেষার্ধে গিয়ে দেশের অনেক এলাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নামতে পারে। এ সময় শৈত্যপ্রবাহও বয়ে যেতে পারে।

সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নূর আহম্মদ বলেন, গত তিনদিন ধরে চলমান সতর্কতা সংকেত তুলে নেয়ায় সোমবার পূর্ব নিয়মে পর্যটকবাহী জাহাজগুলো দ্বীপে এসেছে। এতে সেন্টমার্টিনে পর্যটক সমাগম আবার আগের মতো বেড়েছে।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাহিদ হোসেন সিদ্দিক বলেন, নিম্নচাপ কেটে গিয়ে সতর্কতা সংকেত তুলে নেয়া হলেও আকাশে গোমটভাব রয়ে গেছে। এরপরও সেন্টমার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। নিরাপদ পর্যটনের স্বার্থে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন আগত পর্যটকদের ভালো-মন্দ দেখভালে প্রশাসনের সুদৃষ্টি রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সূত্র : জাগোনিউজ