সিলেট-১
বিএনপির প্রার্থী নির্ধারণে মধুর বিড়ম্বনায় পড়বেন খালেদা জিয়া

মাঈন উদ্দিন আরিফ: জাতীয় নির্বাচনে সিলেট সদর-১ আসনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বলা হয়ে থাকে এই আসনে যে দল জয়ী হয়, সেই দলটি সরকার গঠন করে থাকে। এই ক্ষেত্রে এই আসনে ভালো প্রার্থী কিংবা শক্তিশালী প্রার্থীর কোন সমস্যা নেই বিএনপিতে। তবে সমস্যা হচ্ছে কোন সেই শক্তিশালী প্রার্থী যাকে বাছাই করবেন খালেদা জিয়া! সিলেট সদরের এ আসনটিতে সৎ ও যোগ্য প্রাথী রয়েছে একাধিক। তাদের নিয়ে ভাবনায়ও আছেন খালেদা জিয়া। তবে এই আসনে সিলেট বিএনপির অনেকেই চায় খালেদা জিয়া নিজেই নির্বাচন করুক। আবার কেউ কেউ প্রত্যাশা করেন তার ছেলে তারেক রহমানের সহধর্মিনী ডা. জোবায়েদা রহমান নির্বাচনে আসুক। আবার অনেক মনে করেন, সিলেট সদর আসন থেকে দলের ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহম্মেদ চৌধুরী মনোনয় পেতে পারেন।

এই বিষয়ে সিলেট মহানগর কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. নাজমুল ইসলাম বলেন, সিলেট-১ আসন মানুষ শক্তিশালী প্রার্থী চায়। এই আসনে জিয়া পরিবারের কেউ আসলে সবাই সাদরে গ্রহণ করবে বলে মনে করেন তিনি। এর বাইরে তার ভাষ্য, ইনাম আহমেদ চৌধুর যোগ্য প্রার্থী।

তিনি আরো বলেন, এই আসনের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে আমার দেখতে পাই, অতীতে সিলেট সদর থেকে হুমায়ুন রশীদ চেীধুরী ও সাইফুর রহমানের মতো যোগ্য ব্যক্তিরা নির্বাচিত হয়েছেন। সে হিসেবে ইনাম আহমেদের বিকল্প কোন প্রার্থী আছে বলে আমরা মনে করি না।

তবে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহমেদ চৌধুরী মনে করেন, খালেদা জিয়া অথবা জোবাইদা রহমান প্রার্থী হলে উত্তম হয়।

তিনি বলেন, সিলেটের এই আসনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমার মনে হয় এখান থেকে আমাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অথবা জোবায়েদা রহমান নির্বাচন করলে ভালো। তবে দল চাইলে আমি সদর আসনে নির্বাচন করব এবং আসনটিতে জয় লাভ করার চেষ্টা করবো।

সিলেটের শাহজালাল ও শাহ্পরানের এই আসনটি নিয়ে বিএনপির চিন্তা ভাবনা কি জানতে চাইলে স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আমরা যে নির্বাচনে যাবো সেখানে আগে দেখতে হবে দেশের কি পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। কারণ আমরা বলেছি জতিয় নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে। নিরপেক্ষ সরকারের অধিনে নির্বাচন দিতে হবে। একই সাথে সেই নির্বাচনে সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে মোতায়ন করতে হবে। এই সব দাবি পূরণ হলেই আমার নির্বাচনে যাব। সেই পরিবেশ পরিস্থিতিতে কখন কোথায় কাকে মনোনয় দেবো তখনই সিদ্ধান্ত হতে পারে।

তিনি বলেন, এই পথে আরো অনেক নেতার উথান-পতন হতে পারে। সেইটা দেখে আমরা মনোনয়ন ঠিক করবো। এখনই আমি বিএনপির ১নাম্বার স্থায়ী কমিটির সদস্য হয়ে মনোনয়নের বিষয়ে কিছুই বলতে পারবো না।

মনোনয়নের বিষয়ে দলের আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অবঃ) মাহাবুবুর রহামন বলেন, এখনো নির্বাচন অনেক সময় বাকি। যদি সুষ্ট নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়, তাহলে অবশ্যই এই আসনটি আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্ব পাবে। সেই ক্ষেত্রে ইনাম আহমেদ চৌধুরী অত্যন্ত যোগ্য ব্যাক্তি। যিনি মাঠে থেকে দলের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি আরো বলেন, মনোনয়নের বিষয়ে আরো পরে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। কারণ এই নির্বাচনের দেওয়ার আগে আমাদের অনেক দাবি আছে। সেই দাবি গুলো পূরণ হলেই আমার নির্বাচনে যাব।