মু’মিনের দৃষ্টান্ত খেজুর গাছের ন্যায়

সাইদুর রহমান : খেজুর গাছ খুবই উপকারী মানুষের জন্য। খেজুর গাছ থেকে উৎপন্ন বিভিন্ন খেজুর আরব জাতিদের জন্য খাদ্যবিশেষ। খেজুর হলো গাছের একটি ফল। তাছাড়া খেজুর গাছের পাতা দিয়ে চাটাই তৈরী করা হয়। তারপরে খেজুর গাছের রসও সুপেয়। আরেকটি হলো মাথি। এটাও মানুষ খেয়ে থাকে। ডাল-পালা দিয়ে লাকড়িসহ ফার্নিচারের কাজেও ব্যবহার করা হয়।
অর্থ্যাৎ পুরো খেজুর গাছটিই মানবতার জন্য হিতকর। হাদীস শরীফে একজন মু‘মিনের দৃষ্টান্ত দেয়া হয়েছে খেজুর গাছের সাথে। খেজুর গাছের যেমন সবকিছ্ ুউপকারী তেমনি একজন মু‘মিনের সর্ব অবস্থায় কল্যাণকর।

আনন্দ-বেদনা, স্বচ্ছলতা, দরিদ্রতা সবই মু‘মিনের জন্য কল্যাণকর। হাদীসে এসেছে, আবদুল্লাহ ইবনু উমার (রাঃ) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, গাছপালার মধ্যে এমন একটি গাছ আছে, যার পাতা ঝরে পড়ে না এবং তা হল মুমিনের দৃষ্টান্ত। তোমরা আমাকে বলতে পার, সেটা কোন গাছ? অতঃপর লোকজনের খেয়াল জঙ্গলের গাছ পালার প্রতি গেল। আবদুল্লাহ ইবনে উমার (রাঃ) বলেন, আমার মনে হতে লাগল যে, তা হল খেজুর গাছ। কিন্তু আমি লজ্জাবোধ করলাম। সাহাবায়ে কিরাম (রাঃ) বললেন, হে আল্লাহর রাসুল! আপনিই আমাদের তা বলে দিন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তা হল খেজুর গাছ। আবদুল্লাহ (রাঃ) বলেন, তারপর আমি আমার পিতাকে আমার মনে যা এসেছিল তা বললাম। তিনি বললেন, তুমি যদি তখন তা বলে দিতে যে, উহা হল খেজুর গাছ, তবে অমুক অমুক জিনিস লাভ করার চাইতেও আমার কাছে অধিক প্রিয় হত। মুসলিম হাদীস নং ৬৮৩৮

অন্য এক হাদীসে এসেছে, ইবনে উমার (রাঃ) থেকে বর্ণিত, একদা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার সাহাবীগণকে বললেন, এমন একটি গাছ আছে, যার দৃষ্টান্ত মুনিনের ন্যায়, এ গাছটি কি গাছ তোমরা কি আমাকে বলতে পার? তখন লোকেরা জঙ্গলের গাছসমূহের থেকে একটি গাছের কথা উল্লেখ করল। ইবনু উমার (রাঃ) বলেন, আমার মনে হতে লাগল, তা হল খেজুর গাছ। তখন আমি বলার ইচ্ছা করলাম। কিন্তু তথায় যেহেতু সমাজের বয়োবৃদ্ধ ব্যক্তিগণও ছিলেন, তাই আমি কথা বলতে ভয় পাচ্ছিলাম। লোকজন চুপ হলে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ তা হল খেজুর গাছ। মুসলিম হাদীস নং ৬৮৩৯