বখাটে যুবককে দ্রুত গ্রেপ্তার করুন
অতিষ্ঠ চার বোন

ডেস্ক রিপোর্ট : ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলায় চার বোনকে উত্ত্যক্ত করার ঘটনায় থানায় মামলা হলেও অভিযুক্ত ওই বখাটে যুবকের এখনো গ্রেপ্তার না হওয়ায় আমরা বিস্মিত। মো. দেলোয়ার নামের ওই অভিযুক্ত বখাটে গ্রামের এক এসএসসি পরীক্ষার্থীকে প্রেমের প্রস্তাব দেন। এতে মেয়েটি রাজি না হলে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে তাকে উত্ত্যক্ত করতেন। পরে দেলোয়ার ও তাঁর সহযোগীরা মেয়েটির কলেজপড়ুয়া বড় বোন ও স্কুলপড়ুয়া ছোট দুই বোনকেও উত্ত্যক্ত করা শুরু করেন। শুধু তা-ই নয়, দেলোয়ার মেয়েটিকে জোর করে তুলে নিয়ে আপত্তিকর ছবি তোলেন। এখন এসব ছবি মুঠোফোনে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলে আশঙ্কা করছে মেয়েটির পরিবার।

দেশে কি আইন বলে কিছু নেই? থাকলে তো এমন হওয়ার কথা নয়। গৌরীপুর থানা-পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন কী করছে? মেয়েটির আপত্তিকর ছবি তোলার পর তার পরিবার থানায় গেলে পুলিশ শুধু লিখিত অভিযোগ দিতে বলে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানালেও তিনি এ ব্যাপারে নিশ্চুপ থাকেন। পরে প্রথম আলোয় এ নিয়ে খবর প্রকাশিত হলে গৌরীপুর থানা লিখিত অভিযোগকে মামলা হিসেবে নেয়। ৫ ডিসেম্বর মামলা হলেও গতকাল পর্যন্ত দেলোয়ার গ্রেপ্তার হননি। এই পুলিশ ও প্রশাসন আসলে কার পক্ষে! দেলোয়ারের পরিবার এলাকায় মোটামুটি প্রভাবশালী এবং তারা উপজেলা চেয়ারম্যানের আত্মীয়। এ কারণেই কি দেলোয়ারকে গ্রেপ্তারে পুলিশ গড়িমসি করছে?

ইভ টিজিং, নারীদের যৌন হয়রানি—এসব এখন আমাদের দেশে সাধারণ ঘটনায় পরিণত হয়েছে। নৈতিকতার অভাব, পারিবারিক অসচেতনতা এবং টিভি ও সিনেমার প্রভাবকে এর জন্য দায়ী করা হলেও সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে আইনের প্রয়োগ না হওয়া। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে নারীদের উত্ত্যক্ত করার জন্য কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেওয়ার বিধান রয়েছে। আইনের প্রয়োগ নিশ্চিত করতে না পারলে এসব সমস্যা দূর করা যাবে না। আমরা অবিলম্বে অভিযুক্ত বখাটে দেলোয়ারকে গ্রেপ্তার ও বিচারের মুখোমুখি দেখতে চাই। প্রথম আলো