জেরুজালেম ইস্যুতে একদিকে ট্রাম্প, আরেকদিকে গোটা বিশ্ব

লিহান লিমা: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার পর বিশ্বজুড়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া, তোলপাড় ও উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। জাতিসংঘ, ইউরোপিয় ইউনিয়ন, ওআইসি, আরব লীগসহ যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ মিত্র দেশগুলোও ট্রাম্পের এই একতরফা সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করে।
ব্রিটেন, জার্মানি, ফ্রান্স, সৌদি আরব, তুরস্ক এবং জর্ডান ট্রাম্পের এই ঘোষণার তীব্র সমালোচনা করে। বৃহস্পতিবার ফিলিস্তিনের খ্রিষ্টান ও মুসলিমরা বেথেলহাম, রামাল্লা ও জেরুজালেমে ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তে প্রতিবাদ করে। তারা রাবার বুলেট ও টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করে। এই সময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে প্রায় ৪০ জন আহত হয় বলে জানায় সিএনএন। মুসলিমরা জেরুজালেমে নামাজ আদায় করে তাদের অধিকার ব্যক্ত করে।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন জানায়,‘যুক্তরাষ্ট্র শান্তি ভঙ্গ করেছে।’ হামাস নতুন ইন্তিফাদার ডাক দেয়। ইরাকের ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ সিস্তানি বলেন, ‘এটি আরব ও মুসলিমদের হৃদয়ে আঘাত করেছে।’ জর্ডান ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তকে অবৈধ বলে উল্লেখ করে। কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মেদ বিন আবদুল রাহমান আল থানি বলেছেন, ‘ট্রাম্পের এ ঘোষণা শান্তিপ্রত্যাশিদের মৃত্যুদন্ড ঘোষণার শামিল।’

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোন বলেন, ‘প্যারিস এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে না। পাকিস্তান জানায় , এটি আন্তর্জাতিক আইন ও জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের রেজ্যুলেশনকেভঙ্গ করেছে।’ সৌদি বাদশা সালমান ট্রাম্পকে হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, আপনার এ সিদ্ধান্ত মুসলিম বিশ্বের মধ্যে উত্তেজনা বাড়াবে। মিশরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল সিসি যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত এ অঞ্চলের স্থিতিশীলতাকে জটিল করে তুলবে। তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান বলেছেন, ট্রাম্পের ঘোষণার ফলে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলকে কড়া মূল্য দিতে হবে।

ইরান বলছে, ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত অভ্যুত্থানের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিয়েছে। ইরান কখনো ইসলামের পবিত্র ভূমির উপর কোনো ধরণের আগ্রাসন মেনে নেবে না। লেবাননেরপ্রেসিডেন্ট মাইকেল আওন আরব লীগের কাছে দেওয়া বক্তব্যে বলেন, ট্রাম্পের ঘোষণার মধ্য দিয়ে এ অঞ্চলে শান্তি প্রক্রিয়া আরও কয়েক দশক পিছিয়ে যাবে। কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে ট্রাম্পের ঘোষণা শান্তিকামী মানুষের জন্য মৃত্যুদ- ঘোষণার মতো রায়।
ট্রাম্পের ঘোষণাকে বিপদজনক উদ্যোগ বলে মন্তব্য করেছে আরব-লীগ। ভবিষ্যতে শান্তি আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন আরবলীগ নেতৃবৃন্দ।

বলিভিয়ার রাষ্ট্রদূত সাচে সার্জিও লরেন্টি সোলিজ ট্রাম্পের এ সিদ্ধান্তকে অপরিণামদর্শী ও অনেক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে অভিহিত করেন। ট্রাম্পের এমন ঘোষণার পর জাতিসংঘের মহাসচিব এ ধরনের পদক্ষেপের কঠোর সমালোচনা করেন।
অপরদিকে, ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন,‘এটি একটি ঐতিহাসিক দিন। জেরুজালেম গত ৭০ বছর ধরেই ইসরায়েলের রাজধানী। জেরুজালেম আমাদের আশা, আমাদের স্বপ্ন।’