খরচ বেশি হওয়ায় ফ্ল্যাট নিবন্ধনে আগ্রহ হারাচ্ছে ক্রেতারা

ফারমিনা তাসলিম : প্রতিবেশী দেশসহ উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন দেশের তুলনায় বাংলাদেশে ফ্ল্যাট নিবন্ধনের খরচ কয়েকগুণ বেশি। বড় অংকের টাকার কারণে অনেক ক্রেতাই নিবন্ধনে আগ্রহ হারাচ্ছেন। এতে ক্রেতা ঝুঁকিতে পড়ার পাশাপাশি রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার।

রাজধানীর কলাবাগানের বাসিন্দা শারমিন এলেম রিমি পেশায় স্কুল শিক্ষক। একটি ফ্ল্যাট কিনেছেন তিন বছর আগে। তবে প্রায় দুই বছর আগে ফ্ল্যাটে উঠলেও এখনো নিবন্ধন করেননি। কারণ নিবন্ধনের বড় অংকের টাকা জোগাড় করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাকে।

বাংলাদেশে ফ্ল্যাটের আকার ভেদে নিবন্ধন খরচ ১৪ থেকে ২১ শতাংশ পর্যন্ত। অথচ পাশের দেশ ভারতে ফ্ল্যাট নিবন্ধন খরচ ৭ থেকে ৮ শতাংশ, পাকিস্তানে আড়াই থেকে ৫ ভাগ, মালয়শিয়াতে ৫ থেকে ৬ শতাংশ, থাইল্যান্ডে ২ শতাংশ এবং যুক্তরাষ্ট্র নিবন্ধন খরচ ৫ শতাংশ।

আবাসন ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিহ্যাব বলেছে, নিবন্ধন ফি বেশি হওয়ায় ফ্ল্যাট কেনায় আগ্রহ হারাচ্ছেন মধ্যবিত্তরা। পাশাপাশি রাজধানীসহ সারা দেশে অন্তত ১০ হাজার ফ্ল্যাট ক্রেতারা বুঝে নিলেও নিজেদের নামে নিবন্ধন করেননি।

রিহ্যাবের সভাপতি আলমগীর শামসুল আল-আমিন বলেন, ফ্ল্যাটগুলো রেজিস্ট্রশেনের আওতায় আনা হলে সবাই নিবন্ধন করতে তখন বাধ্য হবে।

স্থাপত্যবিদেরা মনে করছেন, সবার জন্য আবাসন নিশ্চিত করতে ফ্ল্যাটের নিবন্ধন ফি কমানো দরকার। এছাড়া ফ্ল্যাটের নিবন্ধন ফি কমানোর বিষয়ে দ্বিমত করছেন না অর্থ প্রতিমন্ত্রীও। তবে তিনি বলছেন, রাজস্ব আয়ের বড় এই উৎসে আপাতত হাত দিতে রাজি নয় সরকার।

এদিকে আবাসন খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রচুর ফ্ল্যাটের নিবন্ধন না হওয়ায় চূড়ান্তভাবে এ খাত থেকে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হচ্ছে সরকার।

সূত্র – ইনডিপেন্ডেট টিভি