ড. মুবাশ্বার হাসান নিখোঁজের ১ মাস পূর্ণ
যার হারায় সেই বুঝে কষ্টটা কেমন !

রবিন আকরাম: একমাস আগে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মুবাশ্বার হাসান নিখোঁজ হয়েছিলেন। এছাড়াও আরো রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক ও শিক্ষক এভাবে নিখোঁজ হয়েছেন। সর্বশেষ গত সোমবার নিখোঁজ হন সাবেক রাষ্ট্রদূত এম মারুফ জামান।

কোন কোন ক্ষেত্রে এই নিখোঁজের পেছনে সরকারেরই কোন সংস্থার হাত আছে বলে বলে অভিযোগ করেছে মানবাধিকার সংস্থাগুলো। গত একমাস ধরে ড. হাসানের পরিবার পুলিশ ও সরকারের কাছে তাকে খুঁজে বের করার দাবি করে আসছে।

এ ব্যাপারে ড. হাসানের বোন তামান্না তাসনিম বিবিসি বাংলাকে বলেন, কর্তৃপক্ষ সবসময় বলে আসছেন আমাদের সময় চাই, আমরা চেষ্টা ও ক্লু খোঁজার চেষ্টা করছি। যতবার আমরা পুলিশের কাছে গিয়েছি তারা বলে আসছেন আমরা চেষ্টা করছি।

নিখোঁজের ব্যাপারে তার বোন আরো বলেন, আমরা কখনো চিন্তা করি নাই এমন কিছু ঘটবে। যখন পত্র-পত্রিকাতে দেখি অনেকেই নিখোঁজ হওয়ার পরে ফিরে আসছে। তখন খুব শান্তি লাগে। মনে হয় আমার ভাই তাদের মত একদিন ফিরে আসবে।

গত একমাস আপনাদের সময় কিভাবে কেটেছে এমন প্রশ্নের জবাবে তামান্না বলেন, এই প্রশ্নটার জবাব কোন শব্দ দিয়ে বোঝানো সম্ভব না। যখন আপনি কাউকে হারাবেন তখন আপনি বুঝতে পারবেন। আসলে যার হারায় সেই বুঝে কষ্টটা কেমন।

সম্প্রতি নিখোঁজের ঘটনায় রাষ্ট্রের ভুমিকা আছে কিনা জানতে চাইলে তামান্না বলেন, রাষ্ট্রের ভূমিকা আছে বা নেই আমার জানা নেই। আমি শুধু চাই যারা তাকে আটকে রেখেছে তারা যেন সুস্থ স্বাভাবিকভাবে তাকে ফেরত দেয়। আমাদের কোন কিছুর দরকার নেই আমরা শুধু মানুষটাকে চাই। দরকার হলে তাকে বাসায় আটকিয়ে রাখবো, আপনাদের আটকিয়ে রাখতে হবে না। কোথায় ছিল, কি করছে কিছু জানার দরকার নেই আমাদের, শুধু আমার ভাই জীবিত ফিরে আসলেই হবে।

উল্লেখ্য, গত ৭ নভেম্বর বিকালে কর্মস্থল নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বনশ্রীর বাসার উদ্দেশে রওয়ানা হওয়ার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন মোবাশ্বের হাসান সিজার। সেদিন সন্ধ্যা পৌনে সাতটা থেকে তার মুঠোফোনটি বন্ধ রয়েছে। সূত্র : বিবিসি