নিখোঁজের ঘটনাগুলো জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে

মে. জে. (অব.) আব্দুর রশীদ : আমাদের দেশে সাধারণ মানুষ থেকে বিশিষ্ট লোক একের পর এক নিখোঁজ হচ্ছে। সম্প্রতি সাবেক সেনা কর্মকর্তা ও সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান বাসা থেকে এয়ারপোর্ট যাওয়ার সময় নিখোঁজ হয়। এরকম নিখোঁজ হওয়ার ঘটনাগুলো জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে এবং সংঙ্কা তৈরি করে। জনগণকে স্বস্থি দেওয়ার জন্যে এ ধরনের নিখোঁজ অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। নিখোঁজ হওয়ার কারণ এবং তদন্ত সাপেক্ষে নিখোঁজের বিষয়টি উদঘাটন করা উচিত। যারা নিখোঁজ হচ্ছে তাদের উদ্ধার করতে হবে। এটা যদি সরকার না করতে পারে তাহলে সাধারণ মানুষের ভেতর ভীতি দিন দিন বাড়বে। নাগরিক নিরাপত্তার জন্য সরকারকে এসব বিষয় গুলো দেখা উচিত। আর অন্যদেশে নিখোঁজ হয় বলে আমাদের দেশেও নিখোঁজ হবে এটা কোনো কথা নয়।

কম-বেশি অপরাধ সব দেশেই আছে। অপরাধগুলো মানুষের মনে কিভাবে প্রভাব ফেলে সেটা বিশ্লেষণ করে দেখতে হবে। কিছু কিছু অপরাধ আছে যেটার কারণে জনগণের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। এর মধ্যে নিখোঁজ, খুনের মতো ঘটনাগুলো মানুষের মনে বেশি ভীতি সৃষ্টি করে। তখন মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে। এসব অপরাধগুলো কমানো না গেলে তাহলে জনগণের ভীতিটা বাড়তে থাকে। দেশের যারা নিরাপত্তাবাহিনী তারা এই বিষয়টি অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। নিখোঁজ, খুন রোধ করতে না পারলে নিরাপত্তাবাহিনীর উপর থেকে মানুষের ভরসা উঠে যাবে। কারণ, নিরাপত্তা জিনিসটা হচ্ছে স্বস্থিবোধ। মানুষের মনে স্বস্থিবোধ না থাকলে দেশেও অশান্তি বিরাজ করবে।

পরিচিতি : নিরাপত্তা বিশ্লেষক
মতামত গ্রহণ : গাজী খায়রুল আলম
সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ