‘রোবট মানব-মানবীর আমরা ফিকশনে দেখেছি ও গল্পে শুনেছি, আজ আমরা সামনা-সামনি দেখলাম’

কেএম হোসাইন : প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্প, জনপ্রেক্ষিত বিশেষজ্ঞ মো: নাইমুজ্জামান মুক্তা বলেন, এতদিন আমরা রোবট মানব-মানবীর কথা সায়েন্স ফিকশনে শুনেছি। সেখানে তাদের অনুভূতির কথা, মানবিক গুনাবলীর কথা বলা হয়েছে। আর সেই কাল্পনিক গল্পকে বাস্তবে আমাদের চোখের সামনে, সেটি দেখিয়ে দিল রোবট সোফিয়া।

মিথিলা ফারজানা’র সঞ্চালনায় একাত্তর টেলিভিনের নিয়মিত অনুষ্ঠান একাত্তর জার্নালে তিনি একথা বলেন। অতিথি হিসেবে আরও ছিলেন ডিবিসি নিউজের সম্পাদক প্রণব সাহা, বাংলােেদশ কমিউনিস্ট পার্টি’র কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য রুহিন হোসেন প্রিন্স ।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা রোবটের সাথে আপনি দেখা করেছে,অভিজ্ঞতাটা আমাদের বলেন যদি? জানতে চাইলে মো: নাইমুজ্জামান মুক্তা বলেন, গতকাল রোবট সোফিয়ার সাথে দেখা করার সুযোগ হয়েছিলো। তার অনুমতি নিয়ে একটা সেলফিও তুলেছিলাম। আর আজকে তো সবাই দেখেছেই রোবটটি ডিজিটাল ওর্য়াল্ড অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলেছে।

রোবটটি’কে যেসব প্রশ্ন করা হয়েছে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে তার উত্তর ঘুরিয়ে ছিলে এটি কি সম্ভব জানতে চাইলে মো: নাইমুজ্জামান মুক্তা বলেন, এর আগে আমরা আর অনেক রোবট দেখেছি। রোবট মানব-মানবীর কথা আমরা ইতিমধ্যে সায়েন্স ফিকশনে শুনেছি। সেখানে তাদের অনুভূতির কথা, মানবিক গুনাবলীর কথা বলা হয়েছে। আর সেই কাল্পনিক গল্পকে বাস্তবে আমাদের চোখের সামনে সেটি দেখিয়ে দিল রোবট সোফিয়া। সোফিয়া মানুষের মুখেরভাব দেখে বুঝতে পারে। আপনার মন ভালো না খারাপ আছে। আগে আমরা যে রোবট দেখেছি সেগুলো দিয়ে সাধারণত কাজ করানো হত। কিন্তু সোফিয়া রোবট সে হাসে, কথা, অনুভূতি বুঝে এগুলো ্রআমরা ফিকশনে দেখেছি। আর সেটি আমরা আজ সরাসরি দেখলাম।

সৌদি কেনো সবার আগে রোবটটিকে নাগরিকত্ব দিল এটা আমাদের কাছে আশ্চর্য লেগেছে এমন কূটনৈতিক প্রশ্ন ঘুরছে জানতে চাইলে মো: নাইমুজ্জামান মুক্তা বলেন, বলেন, ধর্মীয় দেশ হিসেবে বিজ্ঞান মনস্ক হয়ে তারা এমন একটি উদ্যোগ নিয়েছে। এটাকে সাধুবাধ জানাই। বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রায় সৌদি এগিয়ে এসেছে। তাই আমরা তাদের ওয়েলকাম জানাই।