‘জিয়া সাহেব যদি উর্দি পরে রাজনীতি করতে পারে,এরশাদ কেনো উর্দিতে রাজনীতি করতে পারবে না’

কেএম হোসাইন : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, বিএনপির সাথে আলোচনা হবে তখনই যখন তারা একাত্তরের বিরোধী শক্তি জামায়াত ছাড়বে। আগে তারা জামায়াত ছাড়ুক, আমরাও স্বৈরাশাসক এরশাদকে ছাড়ব।

মিথিলা ফারজানা’র সঞ্চালনায় একাত্তর টেলিভিনের নিয়মিত অনুষ্ঠান একাত্তর জার্নালে তিনি একথা বলেন। অতিথি হিসেবে আরও ছিলেন ডিবিসি নিউজের সম্পাদক প্রণব সাহা, বাংলােেদশ কমিউনিস্ট পার্টি’র কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য রুহিন হোসেন প্রিন্স ।

অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, স্বৈরশাসক এরশাদ সরকারের পতন আন্দোলনে সময় মিছিলে সেলিম- দেলোয়ার নিহত হয়েছিলেন। সেই আন্দোলন কিন্তু আমরা শেখ হাসিনার নির্দেশে ছাত্রসমাজ সংগঠনগুলি ঐক্যবদ্ধভাবে করে ছিলাম। জি-নাইনের সম্পাদক সাখাওয়াৎ হোসেন সায়ন্থ এরশাদকে স্বৈরাশাসক বলেছে এর প্রেক্ষিতে জাহাঙ্গীর কবির নানক আরও বলেন, সামরিক শাসক জিয়া সাহেব যদি উর্দি পরে রাজনীতি করতে পারে। এরশাদ সাহেব কেনো উর্দি ছেড়ে রাজনীতি করতে পারবে না। ৯০ আন্দোলনের ফসল হিসেবে সেসময় নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় আসে। বিএনপি যখন ক্ষমতায় আসলো তখন বিচারপতি সাহাবদ্দিন সাহেব আক্ষেপ করে বলেন, রাষ্ট্রপতি ব্যবস্থা থেকে সংসদীয় বিচার ব্যবস্থায় আসার জন্য যে বিল আনতে হবে। দুঃখজনকভাবে হলেও সত্য বিএনপি সংসদে আনছিলো না।

সেই বিলটি কিন্তু সেসময়ে শেখ হাসিনার নির্দেশে আওয়ামী লীগের দুইজন সংসদ এনেছিলেন। আর বিএনপি সেসময় কি করলো আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি, একাত্তরে আমার বাবা-ভাইয়ের হত্যাকারী আলবদর জামায়াতের সাথে ঐক্য গড়লেন। তাহলে কিভাবে আলোচনা হবে। আগে বিএনপিকে জামায়াত ছাড়তে হবে তারপর দেখেন আমরা এরশাদের সাথে জোট ছাড়ি কি না ?