যতদিন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থাকবে, গৌরবের জায়গাটি আ. লীগের ততদিন থাকবে: রেজাউল করিম

হ্যাপী আক্তার: যত দিন বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় থাকবে ততদিন এই গৌরব ও চেতনার জায়গাটি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক শ ম রেজাউল করিম। গতকাল বেসরকারি চ্যানেল ডিবিসি টেলিভিশনের এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন।

যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত দল জামায়াতকে দলে নিয়ে বিএনপিকে  কলঙ্কের ভাগিদার হতে হয়েছে। আওয়ামী লীগ সে ক্ষেত্রে একধরনের সুবিধা পাবে?

এমন প্রশ্নের  জবাবে শ ম রেজাউল করিম বলেন, আওয়ামী লীগ তো সুবিধা পাবেই। কারণ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে বাংলাদেশ হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় যত দিন বাংলাদেশ থাকবে সে সুবিধা আওয়ামী লীগ পাবে। আর আওয়ামী লীগ যদি কখনো পুর্ব পাকিস্তান অথবা তাদের নীতিতে রাষ্ট্র হয়ে যায় তখন আওয়ামী লীগ বিপন্ন হয়ে যাবে। এছাড়া যত দিন বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় থাকবে ততদিন এই গৌরব ও চেতনার জায়গাটি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের থাকবে বলেন তিনি। সূত্র: ডিবিসি নিউজ

তিনি আরো বলেন, বিএনপিকে বারবার আওয়ামী লীগ থেকে বলা হয়েছে তাদের একটি দায়িত্বশীল দল হিসেবে বাংলাদেশের কনসেপ্টে বিশ্বাস করে তারা সবাই সরকারি এবং বিরোধী সকলেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় থাকবে।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করেন না তদের কেন নিষিদ্ধ করা হচ্ছে না কেন? জবাবে রেজাউল করিম করিম বলেন, জামায়াত তাদের একটি মামলা প্রক্রিয়াধী আছে তাদের রেজিস্ট্রেশন নেই।

তিনি আরো বলেন, জামায়াতের বর্তমানে তাদের নির্বাচন করারও যোগ্যতাও নেই।

রেজাউল করিমের কাছে প্রশ্ন ছিল জামায়াত তো তাদের রাজনৈতিক প্রক্রিয়া চালিয়ে যেতে পারে?

জবাবে তিনি বলেন, জামায়াতের রাজনৈতিক প্রক্রিয়া চালিয়ে যাবার কোনো সুযোগ নেই। রাজনৈতিক রেজিস্ট্রেশন না থাকলে তাদের অফিসিয়ালি কর্মকাণ্ড  চালিয়ে যাবার কোন সুযোগ নেই বলেন তিনি।

কারণ হিসেবে তিনি বলেন, বাংলাদেশে যখনই রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে যখন থেকে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া শুরু হয় তখন থেকে নির্বাচনী প্রক্রিয়াটি অন্য রকম হয়েছে। যেমন অনেকেই রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়াধীন নেই তারা রাজনৈতিক কথা যদি বলে বলতে পারবে। তবে রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে চূড়ান্ত অবস্থানটি হলো তাকে রাজনীতি করতে হবে এবং নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতে হবে। সেই পর্যায়ে রাজনীতির পরিপূর্ণতা লাভ করে বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, জামায়াতকে একটি এক্সিকিউটিভ দিয়ে তাদের বন্ধ করে দিলে কোন সমস্যার সমাধান হবে না। সমস্যার সমাধান কিন্তু মলম লাগিয়ে নয়, সমস্যার সমাধান হচ্ছে সার্জারি করে তার ভেতর থেকে পয়জন বের করা।

আনিস/