মানুষ কেন আধ্যাত্মিক চর্চা করবে?

ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ : বাংলাদেশে ইসলামের সূচনা হয়েছে পীর-আউলিয়াদের মাধ্যমে। তাই এ দেশ পীর-আউলিয়ার দেশ হিসেবে পরিচয় লাভ করেছে। অনেকে বলে ইসলাম তলোয়ারের মাধ্যমে বিকাশিত হয়েছে। এ কথাটা একেবারেই ঠিক নয়। কেননা বাংলাদেশের দিকে তাকালেই বোঝা যায়। বাংলাদেশে ইসলামের সূচনা, লালন ও বিকাশ সবই হয়েছে পীর-আউলিয়াদের মাধ্যমে। আমাদের অর্থনীতিকে দেওয়া বিশেষ এক সাক্ষাতকারে এমন কথা বলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের উপ-পরিচালক এবং তেজগাঁও রেলওয়ে স্টেশন জামে মসজিদে খতীব ও জামিয়ার শায়খুল হাদীস ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ

আমাদের অর্থনীতি : একজন পীরকে দেখে আমরা কিভাবে বুঝবো যে তিনি প্রকৃত পীর?
ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ : এই বিষয়ে কথা বলতে হলে দীর্ঘ কথা বলতে হবে। এক্ষেত্রে আসলে সংক্ষেপে কিছু বলা কঠিন। তবে আমি এতোটুক বলবো যে, একজন প্রকৃত পীর তিনিই যার কাছে গেলে মউত, কবর এবং হাশর-মিজানের প্রতি আকর্ষণ বৃদ্ধি পায়। যার কাছে গেলে যত বেশি বৃদ্ধি পাবে সেই তত বড় পীর। এটা হচ্ছে প্রথম আলামত। দ্বিতীয় হলো, তার কথা কুরআন-সুন্নাহের পরিপন্থী হবে না। তৃতীয়, প্রকৃত পীরের কাছে সমকালীন হক্কানী আলেমদের যাতায়াত বেশি হবে। চতুর্থ, তার সাথে যারা জড়িত তাদের তিনজনের মধ্যে দুইজনই আল্লাহর পথে থাকবে। এই রকম আরও বেশ কিছু গুণাগুণ আছে।

আমাদের অর্থনীতি: বাংলাদেশ পীর-আউলিয়ার দেশ হিসেবে পরিচয় পাওয়ার কারণ কি?
ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ : বাংলাদেশে ইসলামের সূচনা হয়েছে পীর-আউলিয়াদের মাধ্যমে তাই এদেশ পীর-আউলিয়ার দেশ হিসেবে পরিচয় লাভ করেছে। আরো একটি কথা হচ্ছে, অনেকে বলে ইসলাম তলোয়ারের মাধ্যমে বিকাশিত হয়েছে। এ কথাটা একেবারেই ঠিক নয়। কেননা বাংলাদেশের দিকে তাকালেই বোঝা যায়। বাংলাদেশে ইসলামের সূচনা, লালন ও বিকাশ সবই হয়েছে পীর-আউলিয়াদের মাধ্যমে।

আমাদের অর্থনীতি : আধ্যাত্মিক চর্চার নামে সারা বাংলাদেশে এমন অনেক মাজারে অনৈতিক, অশ্লীল ও অসামাজিক কর্মকাÐ সংঘটিত হয়। এ বিষয়টিকে আপনি কিভাবে দেখছেন?
ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ : মাজার বরকতের স্থান বাণিজ্যকেন্দ্র নয় এবং এই স্থানকে কোনো বিনোদনস্থল বানানো ঠিক না। কিন্তু এ বরকত আহরণ করতে হবে শরীয়তের নিয়ম অনুসারে। এটা খুব স্পর্শকাতর অংশ। দুর্ঘটনা হলে ঈমান-আমল সব বরবাদ হয়ে যায়।

আমাদের অর্থনীতি : নারীদের আত্মশুদ্ধি চর্চার উপায় কী?
ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ : আত্মশুদ্ধির চর্চার মূলকথা হচ্ছে নিজেকে তৈরি করা। এটা যেমন পুরুষের জন্য দরকার, তেমনই নরীর জন্যও প্রয়োজন। আজকে যে-পদ্ধতিতে পীরেরা বায়াত করান, আলেম উলামাগণ এটা নবীজী (সা.) কর্তৃক নারীদের মুরিদ করার ঘটনা থেকে গ্রহণ করেছেন। আর এটাকে বলা হয় বাইয়াতুন্নেসা। নারীরা বাইয়াত করবে কিন্তু তারা শরীয়তের সীমানা থেকে বের হতে পারবে না। কেননা, নবী (সা.) বাইয়াতের সময় কোনো নারীর হাত ধরেন নি এবং মুরিদ হওয়ার কারণে তার সাথে পর্দার বিধান রহিত হয়নি।

আমাদের অর্থনীতি : মানুষ কেন আধ্যাত্মিকা চর্চা করবে?
ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ : আধ্যাত্মিকতা চর্চা মানুষের জন্য অত্যন্ত জরুরি। মানুষকে দেওয়া হয়েছে নফস-আত্মা। এটা কেবল মানুষেরই আছে, ফেরেশতার নেই। অধ্যাত্মিকা চর্চা করা ছাড়া অন্য কোনো উপায়ে নফসকে দমন করা সম্ভব নয়। আর এ কারণেই তাযকিয়া বা আত্মশুদ্ধি করাকে ফরজ করে দেয়া হয়েছে।