তাজা খবর



রাসূল সা. রাতে যে আমল করতেন

আমাদের সময়.কম
প্রকাশের সময় : 13/11/2017 -22:09
আপডেট সময় : 14/11/ 2017-0:04

জাকারিয়া হারুন : ইসলাম পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা। এ ধর্মে মানুষের জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত সকল বিষয়ের পরিপূর্ণ সমাধান রয়েছে। নিচে রাতে ঘুমানোর নয় আমল উল্লেখ করা হলো।

এক. ডান পাশে শয়ন করা
হযরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রাতের শেষভাগে এগার রাকয়াত নামাজ আদায় করতেন। তারপর যখন সুবহি সাদিক হতো, তখন তিনি হালকা দু’রাকায়াত নামাজ আদায় করতেন। অতঃপর তিনি নিজের ডান পার্শ্বে কাত হয়ে বিশ্রাম নিতেন। যতক্ষণ না মুয়ায্যিন এসে তাঁকে নামাজের খবর দিতেন। (সহিহ বুখারি : ৬৩১০)

দুই . পবিত্র অবস্থায় রাত কাটানো।
হযরত বারায়া ইবনে আযিব (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে বললেন, যখন তুমি শোয়ার বিছানায় যেতে চাও, তখন তুমি নামাজের অজুর মত অজু করবে। এরপর ডান পাশের উপর কাত হয়ে শুয়ে পড়বে। আর এ দুয়া পড়বে,
‏”‏ اللَّهُمَّ أَسْلَمْتُ نَفْسِي إِلَيْكَ، وَوَجَّهْتُ وَجْهِي إِلَيْكَ، وَفَوَّضْتُ أَمْرِي إِلَيْكَ، وَأَلْجَأْتُ ظَهْرِي إِلَيْكَ، رَغْبَةً وَرَهْبَةً إِلَيْكَ، لاَ مَلْجَأَ وَلاَ مَنْجَا مِنْكَ إِلاَّ إِلَيْكَ، آمَنْتُ بِكِتَابِكَ الَّذِي أَنْزَلْتَ، وَنَبِيِّكَ الَّذِي أَرْسَلْتَ‏.‏
উচ্চারণ : “আল্লাহুম্মা আসলামতু নাফছি ইলাইকা, ওয়া য়াজ্জাহতু ইলাইকা, ওয়া ফাওওাদতু আমরি ইলাইকা, ওয়া আলজায়তু জাহরি ইলাইকা, রাগবাতান ওয়া রহবাতান ইলাইকা, লা মালজায়া ওয়া লা মানজায়া মিনকা ইল্লা ইলাইকা, আমানতু বি কিতাবিকাল্লাজি আনজালতা, ওয়া নাবিয়্যিকাল্লাজি আরছালতা”
অর্থ : “হে আল্লাহ! আমি আমার চেহারাকে অর্থাৎ (যাবতীয় অঙ্গ-প্রত্যঙ্গকে) তোমার হাতে সমর্পণ করলাম। আর আমার সকল বিষয় তোমারই নিকট সমর্পণ করলাম এবং আমার পৃষ্ঠদেশ তোমার আশ্রয়ে সোপর্দ করলাম। আমি তোমার গযবের ভয়ে ভীত ও তোমার রহমাতের আশায় আশান্বিত। তোমার নিকট ব্যতীত কোন আশ্রয়স্থল নেই এবং নেই মুক্তি পাওয়ার স্থান। তুমি যে কিতাব অবতীর্ণ করেছ, আমি তার উপর ঈমান এনেছি এবং তুমি যে নবী পাঠিয়েছ আমি তাঁর উপর ঈমান এনেছি। ”
যদি তুমি এ রাতেই মারা যাও, তোমার সে মৃত্যু স্বভাবধর্ম ইসলামের উপরই গণ্য হবে। অতএব তোমার এ দুয়াগুলো যেন তোমার এ রাতের সর্বশেষ কথা হয়। রাবী বারায়া বলেন, আমি বললাম, আমি এ কথা মনে রাখবো। তবে بِرَسُوْلِكَ الَّذِي أَرْسَلْتَ সহ। রাসূলুল্লাহ বললেন, না ওই ভাবে নয়, তুমি বলবে وَبِنَبِيِّكَ الَّذِي أَرْسَلْتَ (সহিহ বুখারি : ৬৩১১)

তিন. ঘুমানোর সময় কী দুয়া পড়বে?
হযরত হুযাইফাহ ইবনে ইয়ামান (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন বিছানায় আশ্রয় গ্রহণ করতে যেতেন, তখন তিনি এ দু’আ পড়তেন,
‏”‏ اللَّهُمَّ بِاسْمِكَ أَمُوتُ وَأَحْيَا ‏”
অর্থ : “হে আল্লাহ! আপনারই নাম নিয়ে মরি আর আপনার নাম নিয়েই বাঁচি। ”
আর তিনি জেগে উঠতেন তখন পড়তেন,
‏”‏ الْحَمْدُ لِلَّهِ الَّذِي أَحْيَانَا بَعْدَ مَا أَمَاتَنَا وَإِلَيْهِ النُّشُورُ ‏”‏‏.‏

অর্থ : যাবতীয় প্রশংসা সেই আল্লাহ্র জন্য যিনি আমাদের মৃত্যুদানের পর আবার আমাদের পুনর্জীবিত করেছেন। আর প্রত্যাবর্তন তাঁর পানেই। (সহিহ বুখারি : ৬৩১২)

চার. ডান গালের নীচে ডান হাত রাখা
হযরত হুযাইফাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রাতে নিজ বিছানায় শোয়ার সময় নিজ হাত গালের নীচে রাখতেন, তারপর বলতেন, হে আল্লাহ! আপনার নামেই মরি, আপনার নামেই জীবিত হই। আর যখন জাগতেন তখন বলতেন, সে আল্লাহ্র জন্য প্রশংসা, যিনি মৃত্যুর পর আমাদের জীবন দান করলেন এবং তাঁরই দিকে আমাদের পুনরুত্থান। (সহিহ বুখারি : ৬৩১৪)

পাঁচ. ডান পাশে ঘুমানো
হযরত বারায়া ইবনে আযিব (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন নিজ বিছানায় বিশ্রাম নিতে যেতেন, তখন তিনি ডান পাশের উপত নিদ্রা যেতেন। এবং বলতেন,
‏”‏ اللَّهُمَّ أَسْلَمْتُ نَفْسِي إِلَيْكَ، وَوَجَّهْتُ وَجْهِي إِلَيْكَ، وَفَوَّضْتُ أَمْرِي إِلَيْكَ، وَأَلْجَأْتُ ظَهْرِي إِلَيْكَ، رَغْبَةً وَرَهْبَةً إِلَيْكَ، لاَ مَلْجَأَ وَلاَ مَنْجَا مِنْكَ إِلاَّ إِلَيْكَ، آمَنْتُ بِكِتَابِكَ الَّذِي أَنْزَلْتَ، وَنَبِيِّكَ الَّذِي أَرْسَلْتَ‏.‏
উচ্চারণ : “আল্লাহুম্মা আসলামতু নাফছি ইলাইকা, ওয়া য়াজ্জাহতু ইলাইকা, ওয়া ফাওওাদতু আমরি ইলাইকা, ওয়া আলজায়তু জাহরি ইলাইকা, রাগবাতান ওয়া রহবাতান ইলাইকা, লা মালজায়া ওয়া লা মানজায়া মিনকা ইল্লা ইলাইকা, আমানতু বি কিতাবিকাল্লাজি আনজালতা, ওয়া নাবিয়্যিকাল্লাজি আরছালতা”
অর্থ : হে আল্লাহ! আমি আমার সত্তাকে আপনার কাছে সমর্পণ করলাম, আর আমার বিষয় ন্যস্ত করলাম আপনার দিকে এবং আমার চেহারা আপনারই দিকে ফিরিয়ে দিলাম, আপনার রাহমাতের আশায়। রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি শয়নকালে এ দুয়াগুলো পড়বে, আর এ রাতেই তার মৃত্যু হবে। সে স্বভাব ধর্ম ইসলামের উপরই মরা যাবে। (সহিহ বুখারি : ৬৩১৫)

ছয়. রাতে ঘুম হতে জাগ্রত হয়ে যে দুয়া পড়বে
হযরত ইবনে আব্বাছ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, একবার আমি মাইমূনাহ (রা.) এর ঘরে রাত্রি অতিবাহিত করলাম। তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উঠে তাঁর প্রয়োজনাদি সেরে মুখ-হাত ধুয়ে শুয়ে পড়লেন। কিছুক্ষণ পরে আবার জাগ্রত হয়ে পানির মশকের নিকট গিয়ে এর মুখ খুললেন। এরপর মাঝারি রকমের এমন অযূ করলেন যে, তাতে অধিক পানি লাগালেন না। অথচ পুরা ‘উযূই করলেন। তারপর তিনি সালাত আদায় করতে লাগলেন। তখন আমিও জেগে উঠলাম। তবে আমি কিছু বিলম্বে উঠলাম। এজন্য যে, আমি এটা পছন্দ করলাম না যে, তিনি আমার অনুসরণকে দেখে ফেলেন। যা হোক, আমি অযূ করলাম। তখনও তিনি দাঁড়িয়ে সালাত আদায় করছিলেন। সুতরাং আমি গিয়ে তাঁর বাম পার্শ্বে দাঁড়িয়ে গেলাম। তখন তিনি আমার কান ধরে তাঁর ডান দিকে আমাকে ঘুরিয়ে নিলেন। এরপর তাঁর তেরো রাক’আত সলাত পূর্ণ হলো। তারপর তিনি আবার কাত হয়ে ঘুমিয়ে পড়লেন। এমনকি নাক ডাকতেও লাগলেন। তাঁর অভ্যাস ছিল যে, তিনি ঘুমালে নাক ডাকতেন। এরপর বিলাল (রাঃ) এসে তাঁকে জাগালেন। তখন তিনি নতুন অযূ না করেই সলাত আদায় করলেন। তাঁর দু’আর মধ্যে এ দু’আও ছিলঃ
‏ “‏ اللَّهُمَّ اجْعَلْ فِي قَلْبِي نُورًا، وَفِي بَصَرِي نُورًا، وَفِي سَمْعِي نُورًا، وَعَنْ يَمِينِي نُورًا، وَعَنْ يَسَارِي نُورًا، وَفَوْقِي نُورًا، وَتَحْتِي نُورًا، وَأَمَامِي نُورًا، وَخَلْفِي نُورًا، وَاجْعَلْ لِي نُورًا ‏”‏‏
উচ্চারণ : “আল্লাহুম্মা জয়াল ফি কলবি নুরান, ওয়া ফি বাছারি নুরান, ওয়া ফি ছাময়ি নুরান, ওয়া আন ইয়ামিনি নুরান, ওয়া আন ইয়াছিরি নুরান, ওয়া ফাওকি নুরান, ওয়া তাহতি নুরান, ওয়া আমামি নুরান, ওয়া খালফি নুরান, ওয়া জয়াল লি নুরান”
অর্থ : ” হে আল্লাহ! আপনি আমার অন্তরে, আমার চোখে, আমার কানে, আমার ডানে-বামে, আমার উপর-নীচে, আমার সামনে-পেছনে, আমার জন্য নূর দান করুন।”
কুরায়ব (রহ.) বলেন, এ সাতটি আমার তাবূতের মত। এরপর আমি ‘আব্বাসের জনৈক পুত্রের সঙ্গে সাক্ষাৎ করলাম, তিনি আমাকে এ সাতটি অঙ্গের কথা বর্ণনা করলেন এবং রগ, গোশ্ত, চুল ও চামড়ার উল্লেখ করলেন এবং আরো দু’টির কথা উল্লেখ করেন। (সহিহ বুখারি : ৬৩১৬)

সাত. ঘুমানোর সময়ের আমল
হযরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত, একবার গম পেষার যাঁতা ঘুরানোর কারণে হযরত ফাতেমা (রা.) এর হাতে ফোস্কা পড়ে গেল। তখন তিনি একটি খাদিম চেয়ে নেয়ার উদ্দেশ্যে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে এলেন। কিন্তু তিনি তাঁকে পেলেন না। তখন তিনি আসার উদ্দেশ্যটি হযরত আয়িশা (রা.) এর নিকট ব্যক্ত করে গেলেন। এরপর তিনি যখন গৃহে ফিরলেন তখন হযরত আয়িশা (রা.) এ বিষয়টি তাঁকে জানালেন। তারপর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের কাছে এমন সময় আগমন করলেন যখন আমরা বিশ্রাম গ্রহণ করেছি। তখন আমি উঠতে চাইলে তিনি বললেন, নিজ স্থানেই অবস্থান কর। তারপর আমাদের মাঝখানেই তিনি এমনিভাবে বসে গেলেন যে, আমি তার দুপায়ের শীতল স্পর্শ আমার বুকে অনুভব করলাম। তিনি বললেন, আমি কি তোমাদের এমন একটি ‘আমাল বলে দেব না? যা তোমাদের জন্য একটি খাদিমের চেয়েও অনেক অধিক উত্তম। যখন তোমরা শয্যা গ্রহণ করতে যাবে, তখন তোমারা আল্লাহু আকবর ৩৩ বার, সুবহানাল্লাহ ৩৩ বার, আল্হামদু লিল্লাহ ৩৩ বার পড়বে। এটা তোমাদের জন্য একটি খাদিমের চেয়েও অনেক অধিক কল্যাণকর। ইবনু সীরীন (রহ.) বলেন, তাসবীহ হলো ৩৪ বার। (সহিহ বুখারি : ৬৩১৮)

ঘুমানোর সময় আল্লাহ্র আশ্রয় প্রার্থণা এবং কুরআন পাঠ।
حَدَّثَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ يُوسُفَ، حَدَّثَنَا اللَّيْثُ، قَالَ حَدَّثَنِي عُقَيْلٌ، عَنِ ابْنِ شِهَابٍ، أَخْبَرَنِي عُرْوَةُ، عَنْ عَائِشَةَ ـ رضى الله عنها أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم كَانَ إِذَا أَخَذَ مَضْجَعَهُ نَفَثَ فِي يَدَيْهِ، وَقَرَأَ بِالْمُعَوِّذَاتِ، وَمَسَحَ بِهِمَا جَسَدَهُ‏.‏

হযরত আয়িশা (রা.) থেকে বর্ণিত, যে, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন বিছানায় যেতেন, তখন মুয়াওবিযাত (সূরা ফালাক ও সূরা নাস) পাঠ করতেন। তারপর তাঁর দু’ হাতে ফুঁক দিয়ে তা শরীরে মাসহ করতেন। (সহিহ বুখারি : ৬৩১৯)

আট. ঘুমানোর পূর্বে বিছানা পরিষ্কার করা
হযরত আবূ হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত,তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যদি তোমাদের কোন ব্যক্তি শয্যা গ্রহণ করতে যায়, তখন সে যেন তার লুঙ্গির ভেতর দিক দিয়ে নিজ বিছানাটা ঝেড়ে নেয়। কারণ, সে জানে না যে, বিছানার উপর তার অনুপস্থিতিতে পীড়াদায়ক কোন কিছু আছে কিনা। তারপর পড়বে,
অর্থ : হে আমার রব্ব! আপনারই নামে আমার শরীরটা বিছানায় রাখলাম এবং আপনারই নামে আবার উঠবো। যদি আপনি ইতোমধ্যে আমার জান কব্য করে নেন তা হলে, তার উপর রহম করবেন। আর যদি তা আমাকে ফিরিয়ে দেন, তবে তাকে এমনভাবে হিফাযত করবেন, যেভাবে আপনি আপনার নেক বান্দাদের হিফাযাত করে থাকেন। (সহিহ বুখারি : ৬৩২০)

নয়. রাতে দুয়া করার জন্য মহান আল্লাহর আহবান
হযরত আবূ হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, প্রতি রাতের শেষ তৃতীয়াংশ অবশিষ্ট থাকতে আমাদের পরওয়ারদেগার আমাদের নিকটবর্তী আসমানে অবতরণ করে ঘোষণা করতে থাকেন, আমার নিকট দু’আ করবে কে? আমি তার দু’আ কবুল করবো। আমার নিকট কে চাবে? আমি তাকে দান করবো। আমার কাছে কে তার গুনাহ ক্ষমা চাবে? আমি তাকে ক্ষমা করে দেবো। (সহিহ বুখারি : ৬৩২১)

এক্সক্লুসিভ নিউজ

সরকারকে ক্ষমতা থেকে নামানোর শক্তি থাকলে চেষ্টা করতে পারেন : মওদুদকে তোফায়েল

জাহিদ হাসান : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের... বিস্তারিত

ব্রেকিং নিউজ
আমেরিকান বিমান ১১ ক্রু নিয়ে জাপান সাগরে বিধ্বস্ত

কামরুল আহসান : আমেরিকান নৌবাহিনীর একটি বিমান ১১ জন ক্রু... বিস্তারিত

জিম্বাবুয়েতে মুগাবে যুগের অবসান
ইতিহাস থেকে কেউ শিক্ষা নিতে চান না: তাজ হাশমি

ফারমিনা তাসলিম: অবসান হলো জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবের ৩৭ বছরের... বিস্তারিত

চুরির অপবাদে নির্যাতন
“তরা মারিস না, ছেলেডা তো মইরা যাইব” (ভিডিও)

নুরুল আমিন হাসান: ‘তরা মারিস না, ছেলেডা তো মইরা যাইব।... বিস্তারিত

মুগাবের পতনের পর কি হতে যাচ্ছে জিম্বাবুয়েতে

রাশিদ রিয়াজ : ৩৭ বছর পর রবার্ট মুগাবে জিম্বাবুয়ের ক্ষমতা... বিস্তারিত

শেখ হাসিনাকে আল্লাহপাক মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য সৃষ্টি করেছেন : কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও... বিস্তারিত





আজকের আরো সর্বশেষ সংবাদ

Privacy Policy

credit amadershomoy
Chief Editor : Nayeemul Islam Khan, Editor : Nasima Khan Monty
Executive Editor : Rashid Riaz,
Office : 19/3 Bir Uttam Kazi Nuruzzaman Road.
West Panthapath (East side of Square Hospital), Dhaka-1205, Bangladesh.
Phone : 09617175101,9128391 (Advertisement ):01713067929,01712158807
Email : [email protected], [email protected]
Send any Assignment at this address : [email protected]