‘মাঠে রাজনীতিতে ফিরতে সরকারের সহযোগীতা কাম্য বিএনপির’(ভিডিও)

কে এম হোসাইন : বিএনপির ভাইস- চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আযম খান বলেন, আজকে যাতে বিএনপির সমাবেশ সফল না হতে পারে সরকার সেজন্য সকল চেষ্টাই করেছে। গতকাল থেকে গণপরিবহন বন্ধ এবং সমাবেশ কোন চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচার না করতে নির্দেশ দেওয়া। কিন্তু আমরা ভেবে ছিলাম সরকার আমাদের সফলভাবে সমাবেশ করতে সহযোগিতা করবে। কিন্তু সরকার সেটা করেনি। আমরা চাই সরকারের সহযোগিতায় আবার মাঠের রাজনীতি ফিরে আসুক বিএনপি। এতে আমাদের সরকারের সহযোগিতা কাম্য ।

সময় টেলিভিশনের নিয়মিত অনুষ্ঠান সম্পাদকীয়’তে ‘রাজনীতি কি মাঠে ফিরলো?’ বিষয়ক আলোচনায় তিনি একথা বলেন। এছাড়া ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক শ ম রেজাউল করিম।

অ্যাডভোকেট আযম খান বলেন, বিএনপি আজকে সোহরাওয়ার্দীতে যে সমাবেশ করলাম, আমরা মনে করে ছিলাম সরকার আমাদের সফলভাবে সমাবেশ করতে সহযোগিতা করবে। রাজনীতিটা আবার পরিপূর্ণভাবে আবার মাঠের রাজনীতিতে গড়াবে। আমরা মনে করেছিলাম আজকে থেকে আবার সমঝোতা, পারস্পারিক বোঝাপড়ারার রাজনীতিটা শুরু হবে। কিন্তু দুর্ভাগের বিষয় আজকের সমাবেশ যাতে সফল হতে না পারে । সেজন্য গতকাল থেকে ঢাকাসহ সারা দেশে বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা শুরু হয়। এর মাঝে গতকাল সন্ধ্যার পর থেকে গণপরিবহন চলাচলও কমে গেছে দেখা গেছে। আজকে সকাল থেকে একেবারে পরিবহন চলাচল বন্ধ ছিল। এতে মনে হয়েছে দেশে সরকারের একটা অলিখিত হরতাল ছিল। তারপরে বেশ কিছু জায়গায় বিএনপির নেতাকর্মীদের মিছিলে পুলিশের হামলা ।

এক প্রশ্নের জবাবে অ্যাডভোকেট আযম খান বলেন, আমরা চাই রাজনীতি আবার মাঠে গড়াক। সামনে নির্বাচন আর সেটা যাতে গ্রহণযোগ্য হয় সেজন্য সকল দলের অংশগ্রহনের জন্য সমান সুযোগ তৈরি করা। সেটা না হলে আবার একটা প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন হবে। এজন্য সরকারকে আরো সহনশীল হতে হবে। আর আজকে সমাবেশে ম্যাডাম খালেদা জিয়া তার বক্তব্যে বলেছে। আমরাও ঘরের রাজনীতিতে আবদ্ধ থাকতে চাই । রাজনীতি মাঠে গড়াক আমরা সেটা চাই। আর আজকে সমাবেশের মাধ্যমে আমরা মাঠে নামলাম। সরকার আমাদের সহযোগীতা করবে আমরা মাঠে থেকে রাজনীতি করতে পারি। সেই সাথে সরকারি দলও মাঠে থাকবে সবাই একসাথে শান্তিপূর্ণ সুশৃঙ্খল পরিমার্জিত গণতান্ত্রিক চর্চায় ফিরে আসব।