প্রশ্নপত্র ফাঁস
‘নীতিবর্জিত শিক্ষকদের শিক্ষকতা করার দরকার নেই’

কে এম হোসাইন : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক(সাবেক) ড. ছিদ্দিকুর রহমান বলেন, শিক্ষকতা পেশায় নীতি বর্জিত লোকদের রাখা যাবে না। যেসকল শিক্ষকরা প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত তাদেরকে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দিয়ে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষা করতে হবে।

সময় টেলিভিশনের নিয়মিত অনুষ্ঠান সম্পাদকীয়’তে ‘প্রশ্নপত্রের নিরাপত্তা’ বিষয়ক আলোচনায় তিনি একথা বলেন। এছাড়া ছিলেন শিক্ষাবিদ ও লেখক ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ।

ড. ছিদ্দিকুর রহমান বলেন, পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে যে শিক্ষকরা। আমি বলল তথাকথিত শিক্ষক যারা এক ঘন্টা আগে পরীক্ষার প্রশ্ন বের করে। মোবাইলে ছবি তুলে বাইরে পাঠিয়ে দেন। আরেক দল দল শিক্ষক সেই প্রশ্ন উত্তর করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে ছেড়ে দেয়। তাহলে কিভাবে এই শিক্ষকদের হাতে আমাদের ছেলে- মেয়েদের ভবিষ্যৎ ছেড়ে দিচ্ছি। কাদের হাতে আমরা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে দিলাম জীবন গঠন করার জন্য। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় সবখানের প্রশ্নপত্র ফাঁসের জন্য আমাদের শিক্ষকরাই জড়িত। এসব শিক্ষকদের ছিহিৃত করে। দৃষ্টান্তমূলক শান্তি আওতায় না আনা পর্যন্ত। তাহলে প্রশ্নপত্র ফাঁস আমরা সহজে বন্ধ করতে পারব না। আর আমাদের নিঃপাপ- কোমল মতি শিক্ষার্থীদের এটাই আপনারা শিখালেন। টাকা দিয়ে প্রশ্ন কিনে নাম্বার পাওয়া যায়। না পড়ে ভালো নাম্বার করতে পারবে। না পড়ে তো আছে কিন্তু তাকে শেখানো হল টাকা দিয়ে প্রশ্ন পাওয়া যায়। পাস করা যায় না পড়ে। সেই শিক্ষার্থী তার কর্মজীবনেও এটা প্রয়োগ করবে। তাহলে দেখেন সেই শিক্ষকের নৈতিকতার ভুলে সুদূর প্রসারিভাবে বহন করতে হবে।