সাংবাদিক উৎপলের সন্ধান নিয়ে বিভ্রান্তি

এম এ আহাদ শাহীন: নিখোঁজ সাংবাদিক উৎপল দাসকে পাওয়া গেছে। বর্তমানে তিনি টাঙ্গাইলের মির্জাপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে বিভিন্ন টেলিভিশনের স্ক্রলে রোববার সন্ধ্যায় নিশ্চিত করা হয়েছে। সাংবাদিক পীর হাবিব মতিঝিল থানার বরাত দিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিলেও পরে তা পরিবর্তন করেছেন।

পরিবর্তিত স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, মতিঝিল থানার আইও রাববানী ফোন করে বললেন উৎপলকে পাওয়া গেছে ,মির্জাপুর হাসপাতালে লোক পাঠান! সবখানে খবর যাবার পর এখন বলছেন সত্য নয়!

এদিকে টাঙ্গাইলে আমাদের প্রতিনিধির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনিও এ তথ্য সঠিক নয় বলে জানিয়েছেন।

মির্জাপুর থানায় ওসিও বলছেন, উৎপল দাসের নামে আমরা কোন ব্যক্তিকে পাওয়া যায়নি।

নিখোঁজ সাংবাদিক উৎপলের বাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার রাধানগর গ্রামে।

এরআগে এ ঘটনায় তাঁর বাবা চিত্তরঞ্জন দাস মতিঝিল থানায় জিডি করেন। সন্তানের নিখোঁজ হওয়ার খবর শুনে তাঁর পুরো পরিবার ভেঙে পড়েছে বলে জানিয়েছেন চিত্তরঞ্জন দাস।

জিডিতে উল্লেখ করা হয়েছে, গত ১০ অক্টোবর মতিঝিলে তাঁর কর্মস্থল পূর্ব পশ্চিম বিডি ডটকম অনলাইন নিউজ পোর্টালের অফিস থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হন ওই সংবাদমাধ্যমের সিনিয়র রিপোর্টার উৎপল দাস। ১০ অক্টোবর থেকে তাঁর ব্যবহৃত মোবাইল ফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। এ ঘটনায় পূর্ব পশ্চিম বিডি ডটকম কর্তৃপক্ষও একটি জিডি করেছে থানায়।

উৎপলের সহকর্মীরা জানান, ১০ অক্টোবর দুপুর ১টার দিকে কাজ শেষে অফিস থেকে বের হন উৎপল দাস। এর পর থেকেই তিনি নিখোঁজ। তাঁর ব্যবহৃত দুটি মোবাইল ফোন নম্বরই বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। পরিবার, সহকর্মী ও বন্ধুবান্ধবের কাছে খোঁজাখুঁজি করেও তাঁর কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এ ঘটনায় তাঁর স্বজন ও সহকর্মীরা উদ্বিগ্ন।

উৎপলের বাবা জিডিতে লিখেছেন, ‘ছেলেকে খুঁজে না পেয়ে আমরা পুরো পরিবার শঙ্কার মধ্যে রয়েছি। আমাদের কারো সঙ্গে কোনো বিরোধ নেই। তাই কেউ আমার ছেলেকে তুলে নিয়ে গেছে এমন সন্দেহ করতে পারছি না। উত্পলের কোনো খবর না পেয়ে তাঁর প্রাণ সংশয়ের আশঙ্কাও করছি। ’