রাসায়নিক বালাইনাশক ব্যবহারকারিদের প্রেসক্রিপশনের আওতায় আনা দরকার

মতিনুজ্জামান মিটু : ফসলে রাসায়নিক বালাইনাশক বা কীটনাশক ব্যবহারের জন্য প্রেসক্রিপশন লাগেনা। অথচ বিষমুক্ত খাদ্যের প্রয়োজনে কীটনাশক ব্যবহারকারিদের প্রেসক্রিপশনের আওতায় আনা দরকার। তাই সরকার এখন অতিরিক্ত বালাইনাশক ব্যবহারকারিদের আইনের আওতায় আনার কথা ভাবছে বলে জানিয়েছেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্ভিদ সংরক্ষন উইং এবং আইপিএম কৌশলের মাধ্যমে নিরাপদ ফসল উৎপাদন প্রকল্পের সিনিয়র এনটোমোলোজিস্ট জাহিদুল আলম।

দেশে রাসায়নিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোনো আইন ও বিধিমালা নেই। এই সুযোগে প্রয়োজনে এবং অপ্রয়োজনে যে কেউ দোকান থেকে যত খুশি রাসায়নিক বালাইনাশক কিনে ফসলে ব্যবহার করেন। এতে ফসলে অতিরিক্ত রাসায়নিক রাসায়নিক বালাইনাশক ব্যবহারের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনা কৌশলসহ সরকারের নানা উদ্যোগে বিগত বছরগুলোতে দেশে রাসায়নিক বালাইনাশকের ব্যবহার কমেছে। এই ধারাকে অব্যহত রাখতে অতিরিক্ত ও অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার রোধে বালাইনাশক ব্যবহারকারিদের প্রেসক্রিপশনের আওতায় আনা দরকার বলে মনে করেন কৃষিবিদরা।

দেশের সব এলাকায় চাষিদের চাহিদা মাফিক প্রেসক্রিপশন করার মতো লোকবল বা কৃষিবিদ আমাদের আছে। প্রেসক্রিপশন প্রথা চালু হলে যখন তখন যে কেউ যতখুশি বালাইনাশক কিনতে পারবেন না।