দাউদ ইব্রাহিমের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করবে ব্রিটিশ সরকার

আশিস গুপ্ত ,নয়াদিল্লি : কুখ্যাত আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন দাউদ ইব্রাহিমের সে দেশে থাকা সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্রিটিশ সরকার। সরকারি সূত্রকে উদ্ধৃত করে এই খবর দিচ্ছে বিভিন্ন ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম। ভারতের বিদেশমন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী ভি কে সিং এ সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেছেন, এখনই দাউদ নিয়ে আমরা কিছু বলছি না। কিছু একটা ঘটছে। তবে এখনই আমরা ঝোলা থেকে বেড়াল বের করছিনা।

ফোর্বসের সমীক্ষা অনুযায়ী, ১৯৯৩ সালের মুম্বই বিস্ফোরণে অন্যতম অভিযুক্ত দাউদ ইব্রাহিম বিশ্বের সবচেয়ে ধনী গ্যাংস্টার। দাউদের মোট ৬৭০ কোটি মার্কিন ডলারের (ভারতীয় মুদ্রায় ৪২,৮৭০ কোটি টাকার) সম্পত্তি রয়েছে। বিশ্বের এক ডজনেরও বেশি দেশে ছড়ানো রয়েছে তাঁর ব্যবসা। এর মধ্যে রয়েছে দক্ষিণ এশিয়া, ইউরোপ এবং আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ। শুধুমাত্র ব্রিটেনেই হোটেল-সহ তাঁর বিভিন্ন সম্পত্তির পরিমাণ ৪৫ কোটি মার্কিন ডলার (ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ২,৮৮০ কোটি টাকা)। বিভিন্ন দেশে ছড়ানো পঞ্চাশটিরও বেশি ব্যবসায় বিনিয়োগ রয়েছে তাঁর।

ব্রিটিশ সরকারের অর্থ দফতর থেকে গত মাসে আর্থিক নিষেধাজ্ঞা জারির সর্বশেষ যে তালিকা প্রকাশিত হয়েছে, সেখানে দাউদের নাম উঠেছে বলে খবর। এর আগে গত জানুয়ারি মাসে সংযুক্ত আরব আমিরশাহিও সে দেশে থাকা দাউদের সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছিল বলে খবর হয়। কিন্তু সরকারি ভাবে এখনও তা স্বীকার করা হয়নি।১৯৯৩ সালের বিস্ফোরণের পর থেকেই ভারত-ছাড়া দাউদ। দাউদ যে করাচির ক্লিফটন থেকে তাঁর সা¤্রাজ্য চালাচ্ছেন, তা বহু দিন ধরেই জানিয়ে আসছে ভারত। কিন্তু বার বার বলা সত্ত্বেও দাউদকে ভারতের হাতে তুলে দিতে রাজি হয়নি পাক-প্রশাসন।

উল্লেখ্য ,২০১৫ সালে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ইংল্যান্ড সফরের সময় কুখ্যাত মাফিয়া ডন দাউদ সম্পর্কিত নানা তথ্য সেদেশের সরকারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। সেই তথ্যের ওপরে তদন্ত করেই এই সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। ইউরোপ ও আফ্রিকার অন্যান্য দেশে কীভাবে দাউদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা যায়, সেটা নিয়েও আলোচনা চলছে গোয়েন্দাদের মধ্যে।