ত্রিপুরায় ছাত্র সংসদ নির্বাচনে শাসকদলের জয়

অনল রায় চৌধুরী, আগরতলা : ভারতের ত্রিপুরায় কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে বিপুল বিজয় পেয়েছে ক্ষমতাসীন দল সিপিআইএমের ছাত্র সংগঠন এসএফআই। জয় পেলেও এবারই প্রথম প্রতিরোধের মুখে পরতে হয় বাম ছাত্র সংগঠনকে। বিরোধী বিজেপির নেত্বাধীন ছাত্র সংগঠনের জোট এবিভিপি ২৬টি আসন দখল করে নিয়েছে।

ছাত্র সংসদ নির্বাচন এবং ভোট গণনা আর এই সমগ্র ভোট পর্বকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার উত্তপ্ত হয়ে উঠে আগরতলা তিনটি কলেজ সহ রাজ্যের সব কটি মহাবিদ্যালয়। এমবিবি কলেজ সহ বেশ কয়েকটি স্থানে গভীর রাত পর্যন্ত সংঘর্ষ চলে। যদিও সব কটি কলেজেই জয়ী হয়েছে শাসক দলের ছাত্র সংগঠন এসএফআই।

বুধবার সকাল থেকে কোথাও কোন সংঘর্ষের খবর না থাকলেও সর্বত্র থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পুলিশ এবং অন্যান্য সুরক্ষা বাহিনী মহাবিদ্যালয় গুলোকে ঘিরে রেখেছে।

ত্রিপুরার ২২ টি সাধারণ ডিগ্রি কলেজের কাউন্সিল নির্বাচনের দিন নির্ধারিত ছিল মঙ্গলবার। কলেজ ভোটের মনোনয়ন জমা দেওয়ার প্রক্রিয়া থেকেই শুরু হয়েছিল বামপন্থী এসএফআই ও হিন্দুত্ব-বাদী ছাত্র সংগঠন এবিভিপির মধ্যে বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষ। শেষ দিনেও তা জারি ছিল।

এদিন সকাল থেকে শুরু হয়েছিল ভোটগ্রহণ। সকাল থেকে ছাত্রছাত্রীরা সাধারণ নির্বাচনের মত ফি কার্ড লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখো যায়। যারা নির্বাচন এড়িয়ে যেতে চাইছিলেন তারা এদিন অনেকেই কলেজ মুখো হননি। তবে অনেককে আবার ছাত্র সংগঠনের তরফেই বাড়ি থেকে কলেজে নিয়ে আসা হয়েছিল।

মঙ্গলবার ভোটদান ও পরে গণনাকে কেন্দ্র করে দুপুর থেকেই উত্তপ্ত হয়ে উঠে বিভিন্ন কলেজ চত্বর। দফায় দফায় সংঘর্ষ চলতে থাকে। রাতে একসময়ে বিজেপি বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মণ এবং পরবর্তী সময়ে বিজেপির সভাপতি বিপ্লব কুমার দেবকেও ছুটে যেতে হয়েছে। তারা আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান। রাত সাড়ে ১২টা নাগাদ অবশ্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসতে থাকে।এই দুই ছাত্র সংগঠনের সংঘর্ষে আহত বেশ কয়েকজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।