ফেলুদার শাহবাগ স্মরণ!

বিনোদন ডেস্ক : আনুবিস বা শেয়াল দেবতা! প্রাচীন মিশরীয় পুরাণ অনুযায়ী মৃত্যু, সমাধিসৌধ আর মমির দেবতা। কিন্তু সেই দেবতাই যদি নিখোঁজ হয় তবে উপায় কী? কে করবে সেই দেবতার খোঁজ?

না, সত্যিকারের দেবতা নিখোঁজ হয়নি। বলা হচ্ছে একটি মূর্তির কথা। বিঘতখানেক লম্বা। সেটিই নিখোঁজ আজ আর তার সন্ধানেই ব্যস্ত এখন প্রাইভেট ইনভেস্টিগেটর প্রদোষ চন্দ্র মিত্র ওরফে ফেলু মিত্তির। সত্যজিৎ রায়ের “শেয়াল দেবতা রহস্য” গল্প অবলম্বনে, ফেলুদা চরিত্রে পরমব্রত, তোপসে চরিত্রে ঋদ্ধি সেনের অভিনয়ে এবং পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়ের পরিচালনায় প্রচারিত হচ্ছে ভারত-বাংলাদেশে তৈরি ফেলুদার প্রথম গল্প “শেয়াল দেবতা রহস্য”।

ফেলুদা বলতেই চোখের সামনে ভেসে উঠে গুরুগম্ভীর মুখায়ব, যে সব্যসাচীর চেহারা তা থেকে দর্শকদের বের করে এনে, নতুন রূপে ফেলুদা চরিত্রে কেমন করলেন পরমব্রত? বইয়ের পাতা থেকে বের হয়ে, মূল গল্পের ভাবালম্বনে নতুন রূপে শার্লক ভক্ত ফেলুদা, শার্লক টিভি সিরিজের যুগে নিজ গুণাবলি দিয়ে উতড়ে যাচ্ছেন বেশ ভালোভাবেই। ফেলুদার মাঝে যদি খুঁজে পেতে চান শার্লককে, কিছুটা আশাহত হয়তো আপনাকে হতে হবে, কিন্তু তবুও বলতেই হয় পরমব্রত বেশ ভালোভাবেই ধরে রেখেছেন চারমিনার বা অ্যানালিটিক ক্ষমতা দিয়ে ফেলুদার স্বকীয়তা। আইপ্যাড, আইফোন হাতে, নতুন ফেলুদা আরও অনেক বেশি প্রখর। ফেসবুকে ‘ফেলুদা একুশ শতকে’ নামে একটি পেজই খোলা হয়েছে নতুন ফেলুদাকে নিয়ে। রহস্যের সন্ধানে ছুটে চলা, রহস্যের খোঁজে কলকাতা থেকে ঢাকা আর ঢাকাতে…

গাড়ি থামিয়ে, জানালার গ্লাস নামিয়ে ফেলুদাঃ
“চিনিস জায়গাটা?”
– “শাহবাগ না?”
“১২ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৩। ১ লাখ মানুষ, ৩ মিনিট নীরবতা পালন করেছিলো।“

যাদের এখনো দেখা হয়নি ‘শেয়াল দেবতা রহস্য’, তারা দেখে নিতে পারেন বায়োস্কোপ থেকে আর ফেলুদার পরের পর্বগুলো দেখতে চোখ রাখুন বায়োস্কোপ অ্যাপে বা www.bioscopelive.com-এ।

হয়ে যাক আরেকটি নতুন রহস্যের পর্দা উন্মোচন, ফেলুদার সাথে!