রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধান দরকার

 

অধ্যাপক মো. ইউনূস : রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধান দরকার। প্রাথমিকভাবে তাদেরকে আশ্রয় দেওয়া হয়েছে, যেমন ১৯৭১ সালে ভারত আমাদের আশ্রয় দিয়েছিল। অসহায় রোহিঙ্গাদেরকেও আমাদের আশ্রয় দেওয়া উচিত। পাশে থাকা উচিত। তাদের নাম নিবন্ধন করে ফেলা খুবই জরুরি। নতুবা দেশ নিরাপত্তাজনিত সঙ্কটের মধ্যে পড়তে পারে। তাদের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য, স্বাস্থ্যসেবা ও অন্যান্য বিষয়ে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাই কমিশন, ইউএনএইচসিআর সহযোগিতা করবে। তবে তা দেখভালের দায়িত্ব রয়েছে বাংলাদেশ সরকারের। মানবিক কারণে বিএনপিসহ অন্যান্য দল তাদের সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছে, যেহেতু তারা মুসলমান এবং বাঙালি। তবে তাদের সবচেয়ে বড় পরিচয় মানুষ। মানুষ হয়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমাদের কর্তব্য। এই মুহূর্তে তাদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। বিএনপি এ ব্যাপারে যেসব পদক্ষেপ গ্রহণ করছে সেগুলো ইতিবাচক। পাশাপাশি, কফি আনান কমিশনের রিপোর্ট অনুযায়ী তাদেরকে মিয়ানমারের নাগরিক হিসাবে স্বীকৃতিদান ও বাংলাদেশে আগত রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর জন্য জোর কূটনৈতিক তৎপরতা জরুরি। কূটনৈতিকভাবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে কনভিন্স করতে হবে যে, রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক এবং আমাদের মতো ঘনবসতিপূর্ণ দেশে তাদের বেশিদিন রাখা যাবে না। পৃথিবীর যেসকল দেশ মিয়ানমারের কাছে অস্ত্র বিক্রি করছে, তাদের তা না করার জন্য অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ মানবাধিকার সংগঠনগুলো যে আহবান জানিয়েছে, তার সাথে আমি সচেতনভাবে একমত। তবে সরকারকে রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানে বহুমূখি কূটনৈতিক তৎপরতা পরিচালনা করতে হবে।
লেখক : সাবেক সংসদ সদস্য, কুমিল্লা-৫
সম্পাদনা: মোহাম্মদ আবদুল অদুদ