ভিজে যাই তারুণ্যের আলোয়

আমাদের সময়.কম
প্রকাশের সময় : 13/08/2017 -0:52
আপডেট সময় : 13/08/ 2017-0:52

তুষার আবদুল্লাহ: শ্রাবণে আছি। শ্রাবণের জলধারা শহরে বসে উপভোগে পোষায় না। তাই বাইরে পা রেখেছিলাম। স্বল্প বিরতিতে কয়েকটি জেলা ঘুরে এলাম। এই জেলাগুলোতে গত কুড়ি বছরে একাধিকবার যাওয়া হয়েছে। তাই এই জনপদগুলোর মানুষের যাপিত জীবন বা সংস্কৃতির পরিবর্তন চোখে আটকে যায়। দৃশ্যমান বদলগুলোর বাইরেও পট পরিবর্তন ঘটে মানুষের মন ভৌগলিক জমিনেও। বছর খানেক দূরত্বে আবারও একই জনপদে ফিরে গেলে সেই বদলগুলো স্পষ্ট দেখা যায়। নিয়মিত যাতায়াতে দেখা যায় না, এমন বলবো না। তবে সেজন্য সুক্ষ্ম নজর থাকা দরকার। আমাদের সেই নজর দেওয়ার মতো ফুরসত কই? লক্ষীপুরে আমি সপ্তমবারের মতো গেলাম। সেই যাওয়াগুলো ছিল আতঙ্কের। অর্থাৎ আতঙ্কিত জনপদের খবর সংগ্রহ করা। সেই সময়গুলোতে তরুণদের দেখেছি অস্ত্র তপস্যা করতে। ক্ষমতা বলয়ে পাঁক খেতে। এবার গিয়ে দেখি আতঙ্ক কমেছে। ক্ষমতার বলয় থেকে তরুণরা সবাই যে বিযুক্ত হতে পেরেছে তা নয়, অস্ত্রের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে মাদক আসক্তি। জেলা শহরের বাইরে, উপজেলা ইউনিয়নগুলোতে তরুণদের নানা ভোগে মত্ত থাকার আয়োজন বেড়েছে। কিন্তু তারপরেও কিশোর-তরুণরা পথে নেমে এসেছে নানা স্বপ্ন ফেরি করতে। তারা নানা সংগঠন করছে। এক সময় মফস্বল শহরগুলোতে তরুণরা যে সংগঠন নিয়ে মেতে থাকতো, তা আবার ফিরে আসার সোরগোল শুনতে পেলাম লক্ষীপুরে।
মাঝে চাঁদপুরে কিছু সময় কাটাতে হয়েছে। ঘণ্টা দুয়েক সময়। সেই সময়টুকুতে কথা হলো অনেক পরিচিত-অপরিচিত জনের সঙ্গে। তাদের কাছ থেকে জানা- রাজনীতির আদর্শিক লড়াইয়ে তরুণদের ব্যবহার করা হচ্ছে না। এই কথা লক্ষীপুরেও শুনে এসেছি। তরুণ বিভক্ত করে দেওয়া হচ্ছে ক্ষমতা উপভোগের প্রলোভনে। একই রাজনৈতিক দলে তরুণরা বিভক্ত হয়ে পড়ছে দখলের শক্তি কোন দিকে তা বিবেচনা করে। তবে সবাই যে সেদিকে মেতে আছে তা নয়। চাঁদপুরের তরুণরাও বিভিন্ন সংগঠন থেকে নানা ভাষায়-ইশারায় তারণ্যের অপচয়ের প্রতিবাদ করছে। সংগঠিত করছে তরুণদের শুদ্ধ সংস্কৃতি ও রাজনীতির রক্ষাকবচ হিসেবে তৈরি হতে।
দিন দুয়েকের বিরতি দিয়ে আবার পথে বেরিয়ে পড়া। টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ হয়ে শেরপুর। সঙ্গী ছিলেন কয়েকজন রাজনীতিবিদ বন্ধু। তাদের দেখে পথে পথে নেতা-কর্মীদের জমায়েত, স্লোগান। সেখানে তরুণদের ভিড়ই বেশি। বিভক্ত তারাও। একই দলে ক্ষমতা উদযাপন নিয়ে বিভক্তি তৈরি হয়েছে। আগামীতে কোন পক্ষ ক্ষমতা দখলে রাখতে পারবে, সেই অঙ্ক কষে এখন থেকেই বিভক্তি। রাজনীতিবিদ বন্ধুরাই বলছিলেন তরুণদের মধ্যে যদি আদর্শিক ভাঙন থাকতো, বিভক্তি থাকতো তাহলে সেটিকে শুদ্ধ রাজনৈতিক অনুশীলন হিসেবেই দেখা যেত। কিন্তু ক্ষমতা উপভোগের প্রলোভন এবং ঈপসা নিয়ে যে দ্বন্দ্ব এবং লড়াই, তা একপ্রকার আত্মহনন। কারণ এই দ্বন্দ্ব রাজনৈতিক নেতৃত্ব তৈরি করছে না। তৈরি করছে দখলবাদী নেতৃত্বের উপাসক। আদর্শের উপাসক না হয়ে দখলবাদী নেতৃত্বের উপাসক হলে, বর্তমান তারুণ্য আগামী দিনে দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য যোগ্য হয়ে উঠবে না।

জেলা শহরগুলোতে ভোগের আয়োজন বেড়েছে। যেখানে এক সময় এক কাপ চা খেতে টঙ খুঁজে বেড়াতে হতো, সেখানে এখন কফি সুলভ। রাজধানীর নামি-দামি ফ্যাশন হাউজগুলোও পৌঁছে গেছে সীমান্তবর্তী শহরে। ভোগের সকল উপকরণের ফাঁকে ফাঁকে আছে মাদক। এই মাদক কেড়ে নিচ্ছে তারুণ্যের উদ্যমতা। বছর দুই আগেও যে তরুণকে রাজনীতি বা সংস্কৃতির ময়দান দাপিয়ে বেড়াতে দেখা যেতো, সেই তরুণ এখন ঝিমুনিতে আছে। কেউ কেউ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে। এই মাদকও রাজনৈতিক প্রশ্রয় ছাড়া বিপণন হয় না। এমনটাই খবর পেলাম স্থানীয় মানুষ জনের কাছে। তারাই বলছেন তরুণদের কেউ এখন আর যত্ন নেয় না। ব্যবহার করে ছুঁড়ে ফেলে দেয়। এই তথ্যগুলো হয়তো আমাকে হতাশার ঝিমুনিতে ডুবিয়ে দিতে পারতো। পারেনি, কারণ আমার সঙ্গে দেখা হলো, অসংখ্য তরুণের সঙ্গে। যারা নিজেরাই জেগে উঠছে। নিজেদের রক্ষার জন্য কারও ওপর তারা ভরসা করছে না। ওদের কথা- আমরাই আমাদের যত্ন নেবো। আমাদের উদ্যম হারিয়ে যাওয়ার নয়, নষ্টদের প্রতিবাদে, রাজনীতির, সংস্কৃতির মুখোশ মানুষগুলোর বিরুদ্ধে আমরা আবার ময়দান মুখোর করে তুলবো। আপনারা শুধু আমাদের ওপর আস্থা রাখুন, আমরা আদর্শের উপাসনা করতে চাই, ভোগ দখলের নয়।

যখন রাজধানীতে ফিরছিলাম, তখন তুমুল শ্রাবণ ঝড়। দুইপাশের জনপদ অন্ধকার। আঁধারের পথ ভেঙ্গে আমাকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে শ্রাবণের জলধারা। সেই জলধারায় আলো ঝরছে। সেই আলো কখনো আমরা দেখতে পাই কখনো পাইনা। আমাদের তরুণরা যেন সেই আলো। ষড়ঋতু জুড়ে সেই আলো আমাদের জড়িয়ে রাখুক।

লেখক: বার্তা প্রধান, সময় টিভি। বাংলাট্রিবিউন

এক্সক্লুসিভ নিউজ

ভারতীয় পত্রিকার প্রতিবেদন
প্রধান বিচারপতিকে অপসারণের ক্ষমতা হাসিনা সরকারের নেই

মাছুম বিল্লাহ : বাংলাদেশের সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীকে বাতিলের রায় নিয়ে ক্ষুব্ধ... বিস্তারিত

ষোড়শ সংশোধনী
রায় না পড়েই আ.লীগ ও বিএনপি প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছে : নূরুল কবীর

গাজী মিরান : ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ... বিস্তারিত

রায় নিয়ে কথা বলার অধিকার নেই খায়রুল হকের: সুপ্রীমকোর্ট বার সভাপতি (ভিডিও)

এনামুল হক, নূর মোহাম্মদ: সুপ্রীমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট জয়নুল... বিস্তারিত

স্প্যানিশ ভাষায় শোক ও নিন্দা জানিয়েছেন ওবামা ও মিশেল

রবি মোহাম্মদ: সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও ফাস্ট লেডি... বিস্তারিত

হজযাত্রীরা সবাই কি শেষ পর্যন্ত হজে যেতে পারবেন ?

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশে হজযাত্রীদের মধ্যে এখনও সাড়ে তিন হাজার... বিস্তারিত

ফখরুল ঢাকায় বসে ফাঁকা আওয়াজ দেন : মায়া

মুমিন আহমেদ : দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী... বিস্তারিত





আজকের আরো সর্বশেষ সংবাদ

Privacy Policy

credit amadershomoy
Chief Editor : Nayeemul Islam Khan, Editor : Nasima Khan Monty
Executive Editor : Rashid Riaz,
Office : 19/3 Bir Uttam Kazi Nuruzzaman Road.
West Panthapath (East side of Square Hospital), Dhaka-1205, Bangladesh.
Phone : 09617175101,9128391 (Advertisement ):01713067929,01712158807
Email : [email protected], [email protected]
Send any Assignment at this address : [email protected]