৫৭ ধারায় মামলা : খুলনার সেই ওসিকে প্রত্যাহার

সারোয়ার জাহান : ছাগল মারা যাওয়া নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে সাংবাদিক গ্রেফতার হওয়ার ঘটনায় খুলনার ডুমুরিয়া থানার ওসি সুকুমার বিশ্বাসকে খুলনা পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

বুধবার রাতে পুলিশ হেড কোয়াটার্সের নির্দেশে খুলনার পুলিশ সুপার নিজামুল হক মোল্যা তাকে পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করেন। রাত সাড়ে ৮টায় ওসি সুকুমার বিশ্বাস ডুমুরিয়া থানার ওসি তদন্ত আব্দুল খালেকের নিকট দায়িত্ব বুঝে দেন।

জানা যায়, গত ২৯ জুলাই মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি তার নিজ এলাকা ডুমুরিয়ায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও সেচ প্রকল্পের (এফসিডিআই) আওতায় কয়েকজন দুস্থের মাঝে হাঁস, মুরগি ও ছাগল বিতরণ করেন। জুলফিকার আলী নামে দক্ষিণ ডুমুরিয়া গ্রামের এক ব্যক্তির পাওয়া ছাগল ওইদিন রাতেই মারা যায় বলে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। গত সোমবার রাত ৯টার দিকে সুব্রত ফৌজদার নামে এক ব্যক্তি সাংবাদিক আব্দুল লতিফ মোড়লের বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের ৫৭ ধারায় ডুমুরিয়া থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলা হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মাথায় ওই দিন রাত আড়াইটার দিকে ডুমুরিয়া উপজেলা সদরের বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সাংবাদিক লতিফ মোড়ল স্থানীয় একটি দৈনিকের ডুমুরিয়া উপজেলা প্রতিনিধি। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের ৫৭ ধারায় মামলায় সাংবাদিক গ্রেফতারের ঘটনায় খুলনাসহ সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

মামলা দায়েরের পর ডুমুরিয়া থানার ওসি সুকুমার বিশ্বাস বলেন, মামলার বাদী সুব্রত। মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, প্রতিমন্ত্রীর বিতরণ করা ছাগল মারা যাওয়া সংক্রান্ত সংবাদ ফেসবুকে শেয়ার করেন লতিফ। এতে প্রতিমন্ত্রীর সম্মান ক্ষুণ্ণ হয়েছে। তাই লতিফের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা করেছেন তিনি। এদিকে, বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সাংবাদিক লতিফ মোড়ল খুলনা কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি লাভ করেছেন।

-ইত্তেফাক