অভিযোগ প্রমাণ না হওয়া পর্যন্ত রাজাকার বলা যাবে না

কারো বিরুদ্ধে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ উঠলেই বা মামলা হলেই তার নামের সঙ্গে ‘রাজাকার’ যোগ করা যাবে না বলে অভিমত দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল রোববার এই অভিমত দেন।
দোষী প্রমাণিত হওয়ার পরই তার নামের আগে ‘রাজাকার’ শব্দ ব্যবহার করা যাবে বলে সংশ্লিষ্টদের প্রতি অভিমত দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।
রোববার নওগাঁ ও জয়পুরহাটের মানবতাবিরোধী অপরাধে গ্রেফতার তিন আসামিকে সেফ হোমে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আবেদন বিষয়ে শুনানির সময় ট্রাইব্যুনাল এ অভিমত দেন।
ওই আসামিদের সেফ হোমে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতিও দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।
ট্রাইব্যুনালের শুনানিতে আজ রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর আবুল কালাম। প্রসিকিউর তাপস কান্তি বলও উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট আব্দুস সাত্তার পালোয়ান।
এরআগে আসামিদের সেফ হোমে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি চেয়ে আবেদন করে তদন্ত সংস্থা। ওই আবেদনে রাজাকার শব্দ থাকায় আপত্তি জানান আসামিপক্ষের আইনজীবী। পরে ট্রাইব্যুনাল বলেন, তদন্ত শেষে দোষী প্রমাণিত না হওয়ার আগে কাউকে রাজাকার বলা যাবে না।
আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর আবুল কালাম ও তাপস কান্তি বল। তারা বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন আইনজীবী আব্দুস সাত্তার পালোয়ান।
এদিকে, শুনানি শেষে আদালত আগামী ৮ ও ৯ মে ওই আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন। নওগাঁ ও জয়পুরহাটের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার গ্রেফতার তিন আসামি হলেন- রেজাউল করিম, ইসহাক আলী ও শহীদ মন্ডল। অপর এক আসামি নজরুল ইসলাম পলাতক রয়েছেন।
পরে প্রসিকিউটর তাপস কান্তি বল ও আবুল কালাম জানান, মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া নওগাঁর রেজাউল করিম মন্টু, ইসহাক আলী ও শহীদ মন্ডলকে সেফ হোমে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি চেয়ে আবেদন করে তদন্ত সংস্থা। তদন্ত সংস্থার ওই আবেদনে আসামিদের নামের আগে ‘রাজাকার’ শব্দ লেখা থাকায় ট্রাইব্যুনাল এই নির্দেশনা দেন।
ট্রাইব্যুনাল বলেছেন, কোনো ব্যক্তি দোষী প্রমাণিত হওয়ার আগে তাকে ‘রাজাকার’ বলা ঠিক হবে না।
তারা জানান, আগামী ১২ জুলাই এ মামলায় পরবর্তী তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন আদালত।
নিয়ম অনুযায়ী আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের সময় আসামিপক্ষের আইনজীবী, একজন চিকিৎসককে উপস্থিত থাকতে হবে। সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে মাঝে এক ঘণ্টা বিরতি দিয়ে বিকেল ৪টা পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদ করবে তদন্ত সংস্থা।