মামলা কাউন্টার মামলা
সিভিল এভিয়েশনের ৬৯ একর সম্পত্তি রেলওয়ের দখলে

এইচএম দেলোয়ার : বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রনালয়ের অধীন সিভিল এভিয়েশন অথরীটি অব বাংলাদেশ (সিএএবির) ৬৯ একর সম্পত্তি বেদখল হয়ে গেছে। বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনের পূর্ব পাশে এই সম্পত্তি উদ্বারের জন্য সিভিল এভিয়েশন ও রেলওয়ের মধ্যে দেওয়ানি আদালতে কাউন্টার মামলা চলছে। এই ৬৯ একর সম্পত্তি রেলওয়ের দখলে রয়েছে বলে সিএএবির সম্পত্তি কর্মকর্তা জানান।
সূত্রে জানা গেছে , ৮০-এর দশকে তৎকালিন জিয়া আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর বর্তমানে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরের পূর্ব পাশে এরশাদ সরকার বিমানবন্দর এরশাদ রেলওয়ে স্টেশন করার সময় পুরো জায়গা সিভিল এভিয়েশন থেকে লিজ নেয়। ৯০ সালে এরশাদের পতনের পর বিমানবন্দর এরশাদ রেলওয়ে স্টেশনের নাম পরিবর্তন করে বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন নামকরন করা হয়। বিমানবন্দরে রেলওয়ে স্টেশন করার সময় রেলওয়ে কর্তৃপÿ লিজের বাইরে ৬৯ একর জমি দখল করে নেয়। কিন্ত সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপÿ এই বেদখকৃত ৬৯ একর জমি আর উদ্বারে কার্যক্রম গ্রহন করেনি। পরবর্তীতে রেলওয়ে কর্তৃপÿ এই ৬৯ একর জমির মাঠ পরচা করে নেয়।
সূত্র জানায়, রেলওয়ে কর্তৃপÿ এই ৬৯ একর জমির চারপাশে বাউন্ডারি ওয়াল ঘেরা দিয়ে সেখানে তারা বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করে। কিন্ত গত প্রায় একযুগেও সিভিল এভিয়েশন ওই জমি আর দখলে নিতে পারেনি। ওই জমি দখলে নেয়ার জন্য সিভিল এভিয়েশনের আইন বিভাগ রেলওয়ে কর্তৃপÿকে বিবাদি করে দেওয়ানি আদালতে মামলা ঠুকে দেয়। পাশাপাশি রেলওয়েও ওই জমি তাদের দাবি করে সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপÿকে বিবাদি করে কাউন্টার মামলা করে। ফলে দুটি মামলাই আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এভাবে তেজগাওয়েও সিএএবির প্রায় ২০ বিঘা সম্পত্তি বেদখল হয়ে গেছে।
সূত্র জানায় জানায় , সিভিল এভিয়েশন কর্র্তৃপÿ রেকর্ড সংশোনের জন্য আপিল ট্রাইব্যুনাল মামলা করেছে।
একজন আইন বিশেষঙ্ঘ মতামত ব্যক্ত করে বলেন , দেওয়ানি আইনের ২৬ ধারায় কোন সম্পত্তি ১২ বছর বা একযুগ যার দখলে থাকে সেই ওই সম্পত্তি দাবিদার হয়ে যায়। এ ÿেত্রে রেলওয়ে কর্তৃপÿ যেহেতু একযুগ ধরে ৬৯ একর সম্পত্তি দখল করে ভোগ দখল করছে কাজেই ওই সম্পত্তি রেলওয়ের টাইটেল হয়ে গেছে।
সূত্রে জানা গেছে, শুধু ওই ৬৯ একর নয় সিএিএবির বিমানবন্দরের আশপাশে, ইর্শাল কলোনিতে, কাওলার কোয়ার্টারের আশপাশে, আশকোনা ব¯িÍর আশপাশে আশিয়ান সিটির পেটে ৪০ একর সম্পত্তিসহ প্রায় ১০০ একর সম্পত্তি বেদখল হয়ে গেছে। এর সাথে একটি ভুমিদস্যুচক্র জড়িত রয়েছে।
এ ব্যাপারে সিএএবির সম্পত্তি কর্মকর্তা মহসিন ভুইয়া জানান, বেদখকৃত সম্পত্তি দখলে আনতে আমরা আইনগত প্রক্রিয়া চালাচ্ছি।