বিহারি গণহত্যার কথা আমাদের বলতে হবে : মেসবাহ কামাল (অডিও)

kamal-3ফারুক আলম : জাতিগতভাবে আমরা ভুল করেছি। আমার মনে পড়ছে সান্তাহারে ১৯৭১ সালে যে গণহত্যা হয়েছে, যে বিহারি গণহত্যা হয়েছে, সেই কথা আমাদেরকে বলতে হবে। আমরা বাঙালি জাতীয়তাবাদ করতে গিয়ে অনেক ক্ষেত্রে উগ্রজাতীয়তাবাদ করেছি। হিটলারী জাতীয়তাবাদ করেছি। এবং আমরা নিরীহ সন্তানদেরকে ছোট ছোট শিশু কিশোর থেকে শুরু করে অনেক বিহারি যারা নির্দোষ ছিলেন তাদেরকে আমাদের লোকজন (বাঙালি) হত্যা করেছে। এই সত্যকে স্বীকার করতে হবে। আমাদের ভুল স্বীকার করতে হবে। তা না হলে ভবিষ্যতে একই অপরাধ আবার হতে পারে। কাজেই এ ব্যাপারে আমাদের সচেতনা হতে হবে।
বুধবার সিরডাপ মিলনায়তনে উর্দু স্পিকিং পিপলস্ ইউথ রিহ্যাবিলিটেশন মুভমেন্ট (ইউ.এস.পি.ওয়াই.আর.এম) আলোচনা সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক মেসবাহ কামাল এসব কথা বলেন। আলোচনার বিষয় ছিল ‘ক্যাম্পে বসবাসরত উর্দুভাষী জনগোষ্ঠীর মানবাধিকার ও পুর্নবাসন নিশ্চিত করা’।
ইউ.এস.পি.ওয়াই.আর.এম এর সভাপতি সাদাকাত খান ফাক্কুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন লেখক ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ, ইউ.এস.পি.ওয়াই.আর.এম-এর সাধারণ সম্পাদক শাহীদ আলী বাবলু প্রমুখ।
আমি আরেকটা বিষয় নিয়ে গবেষণা করতে চাই সেটা হচ্ছে বিহারিরা যে মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন- আমি তাদেরকে নিয়ে গবেষণা করতে চাই। আমাদের এই দেশ জন্মের পেছনে বিহারিদেরও রক্ত আছে। তাদেরও সংগ্রম আছে। সেটা আমি তুলে ধরতে চাই।
১৯৬৮ সালে সাংগঠনিকভাবে পূর্ব বাংলায় স্বাধীনতা সংগ্রম শুরু হয়েছিল এর সঙ্গে বিহারিরাও ছিলেন।
বিহারি সাথে বা উর্দুভাষীদের সাথে আমাদের কোনো বিরোধ নাই। তারা মানুষ। বাঙালি রাজাকার আল-বদরের সঙ্গে আমার যেমন বিরোধ আছে, উর্দুভাষী বা বিহারির কেউ যদি একাত্তরের ঘাতকের ভূমিকায় থেকে থাকে তার সাথে আমার বিরোধ আছে। এর সঙ্গে আপনাদেরও (বিহারিদের) বিরোধ আছে। কাজেই আপনারা উর্দুভাষী হলেই কোনো অপরাধ করেননি। উর্দু ভাষা পৃথিবীর অগ্রসর ভাষা। উর্দু ভাষায় অসাধারণ সাহিত্য তৈরি হয়েছে। কাজেই বাঙালিদের কোনো ভাষার প্রতি বিরাগ থাকা উচিত নয়। কোনো জাতির প্রতি কোনো জাতির বিরাগ থাকা উচিত নয়। আমাদের বিরাগ হচ্ছে অপরাধীর বিরুদ্ধে। যে অপরাধী সে বাঙালি, চামকা কিংবা বিহারী হোক তার প্রতি আমাদের বিরাগ আছে। এবং অপরাধীর শাস্তি চাই।