চীনকে মোকাবিলায় জাপানি কোস্ট গার্ড জাহাজ পাচ্ছে ফিলিপাইন

pcg-tubataha-620x259-550x230ইমরুল শাহেদ : জাপানের সঙ্গে নিরাপত্তা প্রশ্নে চুক্তিবদ্ধ ফিলিপাইন ইতোমধ্যে ১০টি কোস্ট গার্ড জাহাজ পেয়েছে। দক্ষিণ চীন সাগরে হিস্যা নিয়ে চীনের সঙ্গে এ দু’টি দেশেরই বিরোধ রয়েছে। সেই বিরোধ মোকাবিলার জন্যই এসব জাহাজ দেওয়া হয়েছে ম্যানিলাকে। ৪৪ মিটার দীর্ঘ বিআরবি তুবাতাহা নামের জাহাজগুলো ম্যানিলায় বুধবারই পৌঁছে গেছে। ফিলিপাইনের কোস্ট গার্ডদের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শুধু চীনকে মোকাবিলা নয় এসব জাহাজ দিয়ে অনুসন্ধান কাজ, আইন প্রয়োগ ও মালামাল বহনের কাজও করা হবে। তবে উল্লেখ করা হয়নি, কোথায় সেগুলো মোতায়েন করা হবে। ফিলিপাইনের জন্য বরাদ্দকৃত জাপানি সাহায্যের অর্থে এগুলো নির্মিত হয়েছে। উভয় দেশ থেকেই বলা হচ্ছে, দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের পর দু’দেশের প্রতিরক্ষা সমুন্নত করার জন্য তাদের এই উদ্যোগ। দক্ষিণ চীন সাগরে উত্তরোত্তর বেড়ে যাওয়া চীনের হুমকি মোকাবিলাও এই উদ্যোগের অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। জাপান-ফিলিপাইন এইড সূত্র জানিয়েছে, এ মাসেই ম্যানিলাকে অতিরিক্ত আরও দু’টি টহল জাহাজ দেওয়া হবে। তাদের মধ্যে উদ্ধারকাজে ব্যবহৃত এয়ারক্রাফটের কথাও ভাবা হচ্ছে। পূর্ব চীন সাগরে একটি দ্বীপের মালিকানা নিয়ে চীনের সঙ্গে জাপানের দীর্ঘ কাল থেকে বিরোধ চলে আসছে। এখন দক্ষিণ চীন সাগরেও ম্যানিলা ও বেইজিংয়ের মধ্যে আরেকটি বিরোধ প্রকট হয়ে উঠেছে। ফিলিপাইন চেষ্টা করছে জাপানের সঙ্গে একটা শক্ত বন্ধন সৃষ্টি করতে। তাদের যুক্তরাষ্ট্র এবং অস্ট্রেলিয়ার শক্তিতো আছেই। ফিলিপাইন মনে করে, তারা যদি এভাবে মিত্রতা তৈরি করতে না পারে তাহলে আঞ্চলিক শক্তি চীনকে মোকাবিলা করা যাবে না। এই অঞ্চলে ফিলিপাইনের সেনা বাহিনী ও কোস্ট গার্ডরা হলো সবচেয়ে দূর্বল। সামুদ্রিক অঞ্চলের বিবাদ মিটিয়ে ফেলতে গত সপ্তাহে চীনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফুমিও কিষিদা ও ফিলিপাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পারফেক্টো ইয়াসে। হেগের ট্রাব্যুনাল দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের কোনো অধিকার নেই বলে রায় দেওয়ার পর ফিলিপাইন তাদের হিস্যা নিয়ে সক্রিয় হয়েছে। বেইজিং এ সিদ্ধান্ত নাকচ করে দিলেও এখন চীন ও ফিলিপাইন প্রস্তুতি নিচ্ছে সরাসরি আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বিরোধ মিটিয়ে ফেলতে। এনডিটিভি