ইসলামে বিয়ের প্রয়োজনীয়তা

biye-1ওমর শাহ : বিয়ে একটি সামাজিক বন্ধন। বিয়ের মাধ্যমে নারী পুরুষের সম্পর্কের নতুনত্ব পায়। আর পরিবার গঠনে বিয়ে একজন মুসলমানের জীবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে কাজ করে।
মানবতার ধর্ম ইসলামে নারী-পুরুষের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপনের একমাত্র বৈধ পন্থা হলো বিয়ে। বল্গাহীন, স্বেচ্ছাচারী জীবনের উচ্ছৃঙ্খলতা ও নোংরামির অভিশাপ থেকে সুরা করতেই ইসলাম বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার জোর তাগিদ দিয়েছে। পরিবার গঠন, সংরক্ষণ ও বংশবিস্তারের জন্য বিয়ে ছাড়া আর কোনো বিধি সম্মত পথ নেই। এর মাধ্যমেই ব্যক্তি ও পারিবারিক জীবন পবিত্র ও কলুষমুক্ত হয়ে নৈতিকতার সর্বোচ্চ শিখরে উন্নীত হতে পারে। তাই ইসলাম সামর্থ্যবান ব্যক্তিকে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার নির্দেশ দিয়েছে।
সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও বিয়ে না করা ইসলামনিষিদ্ধ একটি ভর্ৎসনামূলক অপরাধ। কেননা বিয়ে কেবল ভোগ-বিলাসের জন্য নয়, বরং বিয়ে হলো প্রত্যেক নর-নারীর জীবনকে পূতঃপবিত্র, সুন্দর এবং সার্থক করে তুলতে পরে ও প্রত্যভাবে সহায়তা করে থাকে। বিয়ে প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা অবিবাহিত তাদের বিয়ে সম্পাদন করো’ (সূরা নূর : ৩২)। মহানবী সা. বলেছেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা বিয়ে করার যোগ্যতা রাখে, তাদের উচিত বিয়ে করা। কেননা বিয়ে দৃষ্টিকে সংযত করে এবং লজ্জাস্থানকে হেফাজত করে। আর যে বিয়ের দায়িত্ব পালনের যোগ্যতা রাখে না, তার উচিত কাম ভাব দমনের জন্য রোজা রাখা’ (বুখারি, মুসলিম)।
বর্তমান সমাজের তরুণরা বিয়ে ফরজ হওয়ার পরও প্রতিষ্ঠিত হওয়ার ডায়ালগ দিয়ে বিয়ে থেকে বিরত থাকেন। পরিণামে নানা প্রকার যৌনাচারে জড়িয়ে পড়েন, গুনায় লিপ্ত হন। যার কারণে সমাজে পাপাচার ছড়িয়ে পড়ে। সমাজকে সুস্থ্য ও আদর্শশীল রাখার জন্য বিয়েও গুরুত্বপূর্ণ এক মাধ্যম।