৭১কে সামনে নিয়ে এল শিল্পকলার ‘ঘুড্ডি’

man-400x225লিহানলিমা: শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসবে সৈয়দ সালাহউদ্দিন জাকী পরিচালিত নন্দিত চলচ্চিত্র ‘ঘুড্ডি’ প্রদর্শীত হবে।
রাইসুল ইসলাম আসাদ ও সুবর্ণা মুস্তফা জুটির এই ছবিটি প্রদর্শিত হবে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে।
বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের মাত্র নয় বছর পর মুক্তিপ্রাপ্ত ‘ঘুড্ডি’ চলচ্চিত্রে উঠে এসেছে তখনকার ঢাকার রাস্তাঘাট, বিশ্ববিদ্যালয়, দোকান, রেস্টুরেন্ট, সিনেমা হল, ফাইভ স্টার হোটেল, দরিদ্র এলাকার সরুগলি, সাভারের স্মৃতিসৌধ, সোনারগাঁওয়ের পুরনো প্রাসাদ, বুড়িগঙ্গা নদী। স্টুডিওর বাইরে গিয়ে, শহরের বাস্তব পরিস্থিতিকে দর্শকের কাছে তুলে ধরেছে ছবিটি।
ছবির মূল চরিত্র এক তরুণ, যার নাম আসাদ (রাইসুল ইসলাম আসাদ)। তার নিজের কথায় ‘একাত্তরে কুড়ি ছুঁই ছুঁই যার বয়স, এখন কতো বলতে পারি না।’ ঘুড্ডি ছবিতে প্রায় সব ক’টি প্রধান চরিত্রের নামই রাখা হয়েছে এই চরিত্রসমূহে অভিনয় করা শিল্পীদের প্রকৃত নাম অনুসারে।
সাভার স্মৃতিসৌধের সামনে আসাদের মনে মনে বলা একটি স্বগতোক্তির মাধ্যমে আমরা জানতে পারি, আসাদ অংশগ্রহণ করেছিল ১৯৭১-এর মুক্তিযুদ্ধে। বাস্তব জীবনেও অভিনেতা রাইসুল ইসলাম আসাদ একজন মুক্তিযোদ্ধা; তিনি ছিলেন ঢাকা শহরে অভিযান পরিচালনা করা মুক্তিবাহিনীর গেরিলা দলের একজন সদস্য। ছবির সাথে বাস্তবতার যোগাযোগ ঘনিষ্ঠ করার চেষ্টাটি আরো দৃশ্যমান হয় যখন একটি দৃশ্যে নাসিরুদ্দীন ইউসুফ বাচ্চুকে দেখা যায় আসাদের ঘনিষ্ঠ বন্ধু হিসেবে। অলসভাবে বাড়িতে শুয়ে থাকা আসাদের সাথে আড্ডা দিতে তার বাড়িতে আসে বাচ্চু। বাস্তব জীবনেও ১৯৭১ সালে আসাদ আর নাসিরুদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু ছিলেন মুক্তিবাহিনীর একই গেরিলা দলের সদস্য।-বাংলামেইল